advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ইআইইউ প্রতিবেদন
গণতন্ত্রের বৈশ্বিক সূচকে বাংলাদেশ ৮ ধাপ এগিয়েছে

আমাদের সময় ডেস্ক
২৩ জানুয়ারি ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০২০ ০০:০৫
advertisement

ব্রিটিশ সাময়িকী দি ইকোনমিস্টের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান দি ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) সর্বশেষ গণতন্ত্র সূচকে আগের বছরের চেয়ে আট ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। গত বুধবার প্রকাশিত এ সূচকে চলতি বছর ১৬৫ দেশ ও দুটি স্বায়ত্তশাসিত ভূখণ্ডের মধ্যে ৫.৮৮ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশ আছে ৮০তম অবস্থানে। ৫.৫৭ স্কোর নিয়ে গত বছর এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৮৮তম।

ইআইইউ ২০০৬ সাল থেকে নিয়মিত এই সূচক প্রকাশ করে আসছে। মোট পাঁচটি মানদণ্ডের ভিত্তিতে একটি দেশের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে ১০ স্কোরের ভিত্তিতে এই সূচক তৈরি করা হয়। যে পাঁচটি মানদণ্ড বিবেচনায় নেওয়া হয় সেগুলো হলোÑ নির্বাচন ব্যবস্থা ও বহুদলীয় পরিস্থিতি, সরকারে সক্রিয়তা, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ, রাজনৈতিক সংস্কৃতি ও নাগরিক অধিকার। প্রতি সূচকের পূর্ণমান ২। এর মধ্যে প্রতিটি মানদণ্ড মিলিয়ে কোনো দেশের গড় স্কোর ৮-এর বেশি হয়, তবে ধরা হয় সেখানে ‘পূর্ণ গণতন্ত্র’ রয়েছে। স্কোর ৬ থেকে ৮-এর মধ্যে হলে ওই দেশকে চিহ্নিত করা হয় ‘ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র

হিসেবে। আর স্কোর ৪ থেকে ৬-এর মধ্যে হলে ধরা হয় সেখানে মিশ্র ধরনের শাসন চলছে। স্কোর ৪-এর নিচে হলে ধরা হয় দেশটিতে স্বৈরশাসন বিরাজমান।

এবারের সূচকে ৯.৮ স্কোর নিয়ে শীর্ষ গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে নাম এসেছে নরওয়ের। এর পরবর্তী চার অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে আইসল্যান্ড (৯.৫৮), সুইডেন (৯.৩৯), নিউজিল্যান্ড (৯.২৬) ও ফিনল্যান্ড (৯.২৫)। এ ক্ষেত্রে সূচকে ১.০৮ স্কোর নিয়ে তলানির সর্বশেষ দেশ হলো উত্তর কোরিয়া।

বাংলাদেশের প্রতিবেশীদের মধ্যে এই সূচকে ভারত (৬.৯০) ৫১তম, শ্রীলংকা (৬.২৭) ৭১তম, ভুটান (৫.৩০) ৯১তম, নেপাল (৫.২৮) ৯২তম, পাকিস্তান (৪.২৫) ১০৮তম, মিয়ানমার (৩.৫৫) ১২২তম অবস্থানে রয়েছে। সূচকে ভারত এগিয়ে থাকলেও আগের বছরের অবস্থান থেকে তাদের ব্যাপক অবনমন হয়েছে। গত বছর ৭.২৩ স্কোর নিয়ে এই সূচকে ভারতের অবস্থান ছিল ৪১তম। কিন্তু এবার তারা আগের অবস্থান থেকে পিছলে পড়েছে ১০ ধাপ। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ভারতের এই পতনের পেছনে ক্ষয়িষ্ণু নাগরিক স্বাধীনতাকে প্রাথমিক কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে প্রতিবেদনে। বলা হচ্ছে, ভারতে নাগরিকদের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন হওয়ার বিষয়টি মূলত সামনে এসেছে গত বছর জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর। এ ছাড়া আসামে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) কার্যকরও এতে ভূমিকা রেখেছে।

advertisement
Evall
advertisement