advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হাতির ভয়ে ১৩ বছর গাছে

আমাদের সময় ডেস্ক
৩০ জানুয়ারি ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩০ জানুয়ারি ২০২০ ০০:৫৭
advertisement

বুনো হাতির দল প্রায়ই তছনছ করত পুরো গ্রাম। এর মধ্যে নিজের ঘরও বাদ যেত না। এক-দুবার নয়, অনেকবারই এমন দশা দেখে মন ভেঙে যায় এক ব্যক্তির। ফলে বিরক্ত হয়ে গাছের ওপরই ঘর বাঁধার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। আর তারপর প্রায় ১৩ বছর ধরে গাছেই ঘর বানিয়ে থাকতে শুরু করেন ওই ব্যক্তি। সেই সঙ্গে বন্য ফলমূল

খেয়ে জীবন ধারণও শুরু করেন।

বিজয় নামে ওই যুবকের বাস ভারতের আসাম রাজ্যের বাক্সা জেলার মুসলপুরে। গ্রামের সবাই তাকে ‘বনমানুষ’ বলে ডাকেন। অনাথ বিজয় এক সময় অন্যের বাড়িতে কাজ করে পেট চালাতেন। চৌকি বনাঞ্চলের কাছে তার একটি ছোট ঘরও ছিল। কিন্তু ভুটানে জঙ্গল থেকে আসা বুনো হাতির দল প্রায়ই সেটা ভেঙে দিত।

বিজয় বলেন, হাতির ভয়ে কাঠ-খড় জোগাড় করে গাছেই ঘর বানাই। সেই থেকে গাছেই আমার বসবাস। তেমন কোনো অসুবিধা হয় না আমার। ছোটবেলায় অনাথ থাকায় অন্য মানুষের সংস্পর্শ পাইনি। তাই এখন আর মানুষের সংস্পর্শ ভালো লাগে না। গাছের ওপর ঘর তৈরির পর অন্যের বাড়ির কাজও ছেড়ে দিই।

বনের আলু, কচু, শাক, নদীর মাছ, শামুক, কাঁকড়া যা পান তা খেয়েই দিন কাটে বিজয়ের। ছয় বছর চৌকি বনাঞ্চলে থাকার পর পাগলাদিয়া নদীর পাড়ে খৈরানি পথারের কাছে নতুন একটি গাছে ঘর বেঁধেছেন তিনি। সেখানেও প্রায় সাত বছর ধরে থাকেন। একা মানুষের জন্য এটুকুই যথেষ্ট বলে মনে করেন বিজয়।

advertisement
Evaly
advertisement