advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তিনবারই জন্ম মেয়ে শিশুর, ড্রামের পানিতে চুবিয়ে হত্যা করলেন মা

নজরুল মৃধা,রংপুর
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:৩৭ | আপডেট: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:৩৭
প্রতীকী ছবি
advertisement

পর পর দুই মেয়ে জন্ম নিয়েছিল খালেদার। ছেলে সন্তানের আশায় তৃতীয়বার সন্তান ধারণ করেন তিনি। আবারও জন্ম হয় মেয়ে সন্তানের। নাম রাখা হয়েছিল সিনথিয়া। কিন্তু পারিবারিকভাবে প্রচণ্ড চাপে সন্তানকে নিজ হাতে হত্যা করেন তিনি।

খালেদার স্বামী সুলতান মিয়া এ ঘটনায় মিঠাপুকুর থানা একটি মামলা দায়ের করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে খালেদাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায় পুলিশ। বিচারক তাকে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন।

আজ শুক্রবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলায়। শিশু সিনথিয়ার বাবা সুলতান মিয়া উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের গোপিনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা।

জানা যায়, নিজ সন্তানকে পুকুরে রাখা ড্রামের পানিতে চুবিয়ে হত্যা করেন খালেদা। পরে তাকে তড়িঘড়ি করে দাফনের চেষ্টা করে পরিবার। তবে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

পুলিশ জানিয়েছে, সুলতান মিয়া ও খালেদার আগে দুটি মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। তাদের একজনের বয়স ১৩ অন্যজনের ৬। একটি ছেলের আশায় ফের সন্তান ধারণ করেন খালেদা। গত ৫২ দিন আগে তিনি সন্তান প্রসব করেন। এবারও তার মেয়ে সন্তানই জন্ম নেয়।

পারিবারিকভাবে চাপের মধ্যে থেকেও খালেদা মেয়ের নাম রাখেন সিনথিয়া। কিছুদিন আগে ছোট্ট সিনথিয়া খুব অসুস্থ হয়ে পড়ে বলেও জানা যায়।

পুলিশ আরও জানায়, আজ শুক্রবার ভোরে হঠাৎ খালেদা চিৎকার করে কান্নাকাটি শুরু করেন। কারণ জানতে চাইলে পরিবারকে তিনি বলেন সিনথিয়াকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

অনেক খোঁজাখুঁজির পর খালেদাদের বাড়ির পাশে পুকুকে ভাসমান অবস্থায় সিনথিয়ার দেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে মরদেহ পুকুর থেকে তুলে তড়িঘড়ি দাফনের চেষ্টা করে পরিবার। তবে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে সিনথিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

গোপালপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম দিলীপ পাইকাড় দৈনিক আমাদের সময়কে বলেন, ‘সকালে ঘুম থেকে উঠে ঘটনাটি শুনেছি। কি কারণে পুকুরে শিশুটির লাশ পাওয়া গেল, তা রহস্যজনক।’

মিঠাপুকুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাফর আলী বিশ্বাস দৈনিক আমাদের সময়কে বলেন, ‘শিশু সিনথিয়ার বাবার দায়ের করা মামলায় খালেদাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সন্তান হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। অভাবী সংসারে জন্ম নিয়ে অসুখে পড়া ও স্বামীর পরিবারের কাছে প্রতিনিয়ত গালমন্দ থেকে রক্ষা পেতে পুকুরে রাখা পানির ড্রামে ফেলে মেয়েকে হত্যা করেন তিনি।’

ওসি আরও বলেন, ‘সিনথিয়ার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।’ এ ছাড়া খালেদাকে আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে জেলহাজতে পাঠান বলেও জানান তিনি।

advertisement