advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ওবায়দুল কাদের
মুক্তি দিতে ফোন করেছেন ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০১:১০
advertisement

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে ফোন করেছিলেনÑ এ তথ্য জানিয়ে কাদের বলেন, ফখরুল সাহেবের সঙ্গে টেলিফোনে খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে কথা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাদের এ আবেদনটা জানাতে বলেছেন, মৌখিকভাবে। আমি তা প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছি। আমি এটুকু বলতে পারি, এ ছাড়া কোনো লেনদেন বা এ নিয়ে কোনো কথাবার্তা আমাদের সঙ্গে হয়নি।
গতকাল শুক্রবার আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সাধারণ সম্পাদক এ তথ্য জানান। সংবাদ সম্মেলনে আরও ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবাহান গোলাপ, অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ওয়াসিকা আয়েশা খান,
দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়–য়া, উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ।
ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, কালকে টক শোতে শুনলামÑ তলে তলে আলোচনা অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আমার মনে হয় বাস্তবে বিষয়টা তেমন কিছু নয়।  
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমি আগে থেকেই বলে আসছি, খালেদা জিয়ার এই মামলাটি রাজনৈতিক নয়। সরকারের বিবেচনার বিষয়টা তখনই আসে, যখন বিষয়টি রাজনৈতিক বিবেচনার হয়। এ মামলা হচ্ছে দুর্নীতির। মামলাটি সম্পূর্ণভাবে আদালতের এখতিয়ার।
তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার প্যারোলের বিষয়টি তারা আবেদন করতে পারেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে। তবে প্যারোল কী কী কারণে দেওয়া যায় এবং দোষী বন্দিকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া যায় কিনা, আর তারা কী কারণে প্যারোলে মুক্তি চানÑ সে বিষয় উল্লেখ করে তারা লিখিতভাবে কোনো আবেদন এখনো করেননি। আইনমন্ত্রীর সঙ্গেও আমি কথা বলেছি। বিচ্ছিন্নভাবে পরিবারের ও দলের লোকজন খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে কথা বলছেন। কিন্তু আনুষ্ঠানিক কোনো আবেদন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গতকাল (বৃহস্পতিবার) পর্যন্ত পাননি।
খালেদা জিয়ার দল বা পরিবার আবেদন করলে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, যদিটা পরে দেখা যাবে। আমাদের বক্তব্য হচ্ছে প্যারোলের আবেদনের সঙ্গে বিষয়টার মিল আছে কিনা, এটা খতিয়ে দেখা। তাদের আবেদন খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়ার জন্য যুক্তিযুক্ত কিনা, বিষয়টি অবশ্যই দেখা হবে। যেহেতু খালেদা জিয়াকে আদালত দোষী করেছেন, কাজেই মেডিক্যাল বোর্ডের রিপোর্ট আদালতের কাছেই যেতে হবে।
খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে এক প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে অমানবিক কোনো কিছু সরকার করতে পারে না। তার যথাযথ চিকিৎসার ব্যবস্থা সরকার অবশ্যই মাথায় রাখে। তবে একটা বিষয় হচ্ছে, তার শারীরিক অবস্থার বিষয়টা তার দলের লোকেরা যেভাবে বলেন, চিকিৎসকরা কিন্তু সেভাবে বলছেন না।
বিএনপি একদিকে বলছে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে, আরেক দিকে মুক্তির জন্য সরকারের সঙ্গে দেনদরবার করছে বিষয়টি কীভাবে দেখছেনÑ এমন প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটি তাদের দ্বিচারিতা।
তিন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর দপ্তর পরিবর্তন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী সরকারের কাজের সুবিধার জন্য সময়ে সময়ে মন্ত্রিসভায় রদবদল করতে পারেন, কারও দায়িত্বের পরিবর্তন ঘটাতে পারেন। তারা কেউ তো বাদ যায়নি।

advertisement
Evaly
advertisement