advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ক্যাসিনো মেম্বারকে নিয়েও কাজ করতে হয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০০:৪৭
advertisement

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা বলেছেন, ‘আমাদের দেশে মলম পার্টি ও ক্যাসিনো মেম্বার নিয়ে কাজ করতে হয়। তিনি বলেন, ‘দেখা গেল যে একবার এই যে গুলিস্তানে, মহল্লায়, যারা এই যে হকারদের কাছ থেকে টাকা নেয়। কিছুদিন পর হয়তো দেখা গেল নেতা, পাতি নেতা, উপনেতা, তারপর পূর্ণ নেতা। তারপর

কমিশনার। এগুলোও তো আমাদের দেখতে হয়। উনি একদিন এমপি হতে পারেন। সুতরাং সেই ব্যাকগ্রাউন্ড নিয়ে আমাদের কাজ করতে হয়।’

গতকাল আগারগাঁওয়ের নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ৪৯ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার যোগদান উপলক্ষে আয়োজিত কর্মশালার উদ্বোধনী

অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সিইসি বলেন, ‘আমাদের দেশে অনেক সময় বলা হয়Ñ আমেরিকা এমন করে, জার্মানিতে এরকম হয়। আমাদের এখানে হয় না কেন? সেদিন একটা পলিটিক্যাল পার্টি এসেছিল, আমি অত্যন্ত নিচু গলায় বললাম কানেকানে, আগে সুইজারল্যান্ড হতে হবে, তারপর। ইউ মাস্ট থিঙ্ক গ্লোবালি, বাট অ্যাক্ট লোকালি। সেটা কী অবস্থায়, তার ওপর নির্ভর করে।’

নতুন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সিইসি বলেন, ‘সেই রাজনৈতিক ব্যক্তিদের, যারা সবকিছু নিয়ে কাজ করেন, তাদের সামাল দেওয়ার দায়িত্ব আপনাদের। এ দায়িত্ব আর কারও ওপর দেওয়া হয়নি। তার মানে সমাজের সর্বস্তরের সংমিশ্রণগুলো, তার সবই আপনারা একসঙ্গে পেয়ে যাচ্ছেন। এটা একটা বিরাট চ্যালেঞ্জের বিষয়। সেই চ্যালেঞ্জগুলোকে মোকাবিলা করার উপায় হলো চেষ্টা, দক্ষতা ও একাগ্রতা। আর আপনাদের ব্যক্তিত্ব।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন এখন টক অব দি কান্ট্রি। ইভিএম নিয়ে অনেক কথা বলা হয়। আমরা বলি সেই একই কথাÑ সুইজারল্যান্ডে তো পেপার ভোট হয়। সেখানে তো যুদ্ধের মতো বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করতে হয় না। পুলিশ, আর্মি সবাইকে নামাতে হয় না। পোস্টারে আকাশ ঢেকে যায় না। সেই দেশে তো এমন হয় না। তাই বলে কী আমাদের এখানে নির্বাচন করতে হবে না! সেভাবেই নির্বাচন করতে হবে।’

advertisement
Evall
advertisement