advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দুটো জিনিস নিয়েই পড়ে আছেন ইয়াসির আলী

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৫:৫০ | আপডেট: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৭:০৪
ইয়াসির আলী রাব্বী। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে (বিসিএল) দুর্দান্ত পারফর্ম করেছেন ইয়াসির আলী রাব্বী। তার পুরস্কারও পেয়েছেন হাতেনাতে। প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন জাতীয় টেস্ট দলে। ঘরোয়া ক্রিকেটে ধারাবাহিক পারফর্ম করা রাব্বীর প্রধান বাধা হলো ফিটনেস। তাই এখন ফিটনেস নিয়েই এখন তার ধ্যানজ্ঞান।

ফিটনেস নিয়ে প্রশ্ন করতেই দৈনিক আমাদের সময়কে ইয়াসীর আলী জানান, এখন দুটো জিনিস নিয়েই তিনি পড়ে আছেন। ফিটনেস আর স্কিল।

‘আমি ফিটনেস নিয়ে গত তিন চার মাস ধরেই ঠিক মতো কাজ করছি। এখন ফিটনেস লেভেলও মোটামুটি ভালো। এখন মেইন যে ইস্যু ফিটনেস আর স্কিল এই দুটো জিনিস নিয়েই এখন পড়ে আছি। ফিটনেস, স্কিল নিয়ে আমি পাশাপাশি সমানভাবে কাজ করছি’, মুঠোফোনে এভাবেই বলছিলেন ইয়াসীর।

জাতীয় লিগের আগে তিনবার বিপ টেস্ট দিতে হয়েছে ইয়াসীরকে। এরপর থেকেই ফিটনেস নিয়ে অতিরিক্ত কাজ শুরু করেন। এবারের বিসিএলের শেষ পর্বে দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরি করেছেন। তিন ম্যাচে তার ব্যাট থেকে আসে ৩৮৪ রান। শেষ ম্যাচের দুই ইনিংসে তার ব্যাট থেকে আসে ১৬৫ ও ১১০ রান।

জাতীয় টেস্ট দলে ডাক পাওয়ার পেছেন সেঞ্চুরি কতটুকু কাজ করেছে? ইয়াসীর আলী বলেন, ‘আসলে সত্যি কথা বলতে সব জায়গায় ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট কিংবা লিস্টের ম্যাচগুলো কাউন্টেবল। জানি না কতটুক কাজ করবে, যদি আল্লাহর রহমতে সুযোগ হয় তো আলহামদুলিল্লাহ। বাট আমার নিজের জন্য জিনিসটা অনেক ভালো হয়েছে, আমার কনফিডেন্স লেভেলটা অনেক বেড়েছে। বাকিটুকু জানি না আমার নিজের জন্য ভালো হয়েছে।’

এর আগে একবার ট্রাই নেশন সিরিজের আগে টি-টোয়েন্টি দলে ডাকা হয়েছিল। কিন্তু অভিষেক হয়নি। এবার ডাক পেয়েছেন ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ টেস্ট ক্রিকেটে। যদি খেলার সুযোগ হয় তাহলে নিজের সেরাটা দিয়েই খেলবেন।

‘খুব খুশি লাগতেছে। কারণ এত বড় একটা প্ল্যাটফর্ম, দেশের সবচেয়ে হয়েস্ট লেবেলের ক্রিকেট এটা। আল্লাহর রহমতে চান্স হয়েছে স্কোয়াডে। খুব ভালো লাগছে। এটা ভালো লাগারই একটা বিষয়। যদি সুযোগ হয় ইনশাআল্লাহ নিজের বেস্টটা দিয়ে খেলার চেষ্টা করব’, বলছিলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

এখন পর্যন্ত প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৫১.৩৩ গড়ে তার রান ৩৫৪২। সেঞ্চুরি ৮টি হাফসেঞ্চুরি ২২টি। লিস্টের ৭২ ম্যাচে ৩৭.২৮ গড়ে এক হাজার ৮২৭ রান। সেঞ্চুরি দুটি, হাফসেঞ্চুরি ১১টি। এ ছাড়া ৩০ টি-টেয়েন্টি ম্যাচে ২৩.০৪ গড়ে করেন ৫৭৬। 

advertisement
Evall
advertisement