advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হঠাৎ মেলায় হাজির, চা-লিট্টিচোখা খেয়ে দাম মেটালেন মোদি

অনলাইন ডেস্ক
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৪:৫৬ | আপডেট: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৪:৫৭
দিল্লির ইন্ডিয়া গেটের কাছে ‘হুনার হাট’ নামে একটি হস্তশিল্প মেলা পরিদর্শন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিলাসবহুল কোনো হোটেলেই তার যাওয়ার কথা। কিন্তু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবার দেখালেন ভিন্ন চিত্র। গতকাল বুধবার হঠাৎই তিনি রাস্তার পাশের একটি মেলায় হাজির হলেন। এরপর সেখানে বিহারি খাবার ‘লিট্টিচোখা’ ও ‘কুলহাড়ি চা’ খান তিনি।

পরে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে মেলা পরিদর্শনের বেশকিছু ছবি পোস্ট করেন প্রধানমন্ত্রী মোদি, যা নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে।  

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে বলা হয়েছে, মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে বুধবার হঠাৎই দিল্লির ইন্ডিয়া গেটের কাছে ‘হুনার হাট’ নামে একটি হস্তশিল্প মেলা পরিদর্শনে যান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে গিয়ে মেলার একটি দোকান থেকে ‘লিট্টিচোখা’ ও ‘কুলহাড়ি চা’ খান তিনি। সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে নিজেই পোস্ট করেন নরেন্দ্র মোদি।

মেলায় প্রায় ৫০ মিনিট সময় কাটান ভারতের প্রধানমন্ত্রী। কথা বলেন সেখানকার হস্তশিল্পীদের সঙ্গে। প্রধামন্ত্রীর সঙ্গে এদিন ছিলেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মন্ত্রী মুক্তার আব্বাস নকভিও।

জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী হস্তশিল্প মেলায় যাবেন শুনে একপ্রকার বিস্মিত হন মন্ত্রিসভার সদস্যরা। হস্তশিল্প মেলার পাশে থাকা দোকান থেকে ১২০ টাকা দিয়ে ‘লিট্টিচোখা’ ও ৪০ টাকা দিয়ে ‘কুলহাড়ি চা’ খান নরেন্দ্র মোদি।

টুইটারে ছবি দিয়ে তিনি লিখেন, ‘এক অসাধারণ সুস্বাদু লিট্টিচোখা খেলাম দুপুরে। সঙ্গে ছিল এক কাপ গরম চা।’

মেলায় মোদি স্থানীয় শিল্পীদের নির্মিত বাদ্যযন্ত্রও বাজিয়ে দেখার চেষ্টা করেন। এই হস্তশিল্প মেলায় স্থানীয় শিল্পী তাদের নির্মিত বিভিন্ন কারুশিল্প তুলে ধরে নিজেদের সংস্কৃতি তুলে ধরার চেষ্টা করেন।

তবে প্রধানমন্ত্রীর এই ‘লিট্টিচোখা’ খাওয়াকে অনেকে আবার তীর্যক চোখেও দেখছেন। কারণ চলতি বছরের শেষের দিকেই রয়েছে বিহারের বিধানসভা নির্বাচন। আর ‘লিট্টিচোখা’ যে বিহারের অন্যতম প্রধান খাবার তা অবশ্যই মনে করানোর প্রয়োজন নেই দেশবাসীকে।

তাই এই ‘লিট্টিচোখা’ খেয়ে কি এক নতুন বার্তা তুলে ধরতে চাইলেন প্রধানমন্ত্রী? সেই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মনে।

advertisement
Evall
advertisement