advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কয়েক মাসের মধ্যেই আসবে করোনার টিকা মৃত বেড়ে ২১২৩

আমাদের সময় ডেস্ক
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০০:২১
advertisement

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে চীনে মৃত্যুর মিছিল যেন থামছেই না। দেশটির সরকারি হিসাব অনুযায়ী, গত বুধবার পর্যন্ত সেখানে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২১১৮ তে। এর মধ্যে বুধবারই মারা গেছে ১১৪ জন। এদিন নতুন করে ৩৯৪ জনসহ মোট ৭৪ হাজার ৫৭৬ জনে দাঁড়িয়েছে কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা। এ ছাড়া এদিন কোভিড-১৯ রোগে ইরানে ২ জন, জাপানে ২ জন এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় ১ জন মারা গেছেন। রোগটি নিয়ে এরই মধ্যে বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এই রোগের প্রতিষেধক তৈরিতে আরও দেড় বছর সময় লাগতে পারে বলেও জানিয়েছিল তারা। তবে যুক্তরাজ্যের

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষেধক গবেষণা প্রতিষ্ঠান জেনার ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানী ড. সারাহ গিলবার্ট দাবি করেছেন, দেড় বছর নয়, বরং আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই তারা কোভিড-১৯ রোগের প্রতিষেধক তৈরিতে সক্ষম হবেন। এ লক্ষ্যে তার টিম দ্রুততার সঙ্গে কাজ করছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, ড. সারাহ ও তার দল ২০১২ সালে ছড়িয়ে পড়া মার্স (মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম) ভাইরাসের প্রতিষেধক নিয়ে অনেক দিন ধরেই কাজ করছেন। অনেকটা একই গোত্রের হওয়ায় এখন করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরিতে আগের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাচ্ছেন তারা। জেনার ইনস্টিটিউটের ওয়েবসাইটে এক বিবৃতিতে ড. সারাহ বলেন, ‘এনসিওভি ১৯-এর মতো নতুন প্যাথোজেনগুলোর জন্য দ্রুত প্রতিষেধক প্রয়োজন। করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রে ভালো কাজ করে এমন প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা তার ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের’ জন্য প্রস্তুত হচ্ছি। এ কাজ দ্রুত শেষ করতে আমাদের সঙ্গে কাজ করছে ইতালির ওষুধ কোম্পানি অ্যাডভেন্ট।’

এদিকে প্রথবারের মতো চীনের বাইরে গত বুধবার কোভিড-১৯ রোগে সর্বোচ্চ প্রাণহানি ঘটেছে। এদিন জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে নোঙরে থাকা প্রমোদতরী প্রিন্সেস ডায়মন্ডে ২ জন মারা যায়। জাহাজটি গত ৩ ফেব্রুয়ারি ইয়োকোহামা বন্দরে নোঙরের পর থেকেই কোয়ারেনটাইনে ছিল। জাহাজটিতে থাকা ৩ হাজার ৭০০ আরোহীর মধ্যে এ পর্যন্ত ৬২১ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। একই দিন ইরানের কোম শহরে মারা যায় ২ জন। এ ছাড়া দক্ষিণ কোরিয়ায়ও এক জনের প্রাণহানি হয়েছে। গতকাল পর্যন্ত দেশটিতে নতুন করে আরও ২২ জনকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত বলে শনাক্ত করা হয়। এ নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৪-এ।

advertisement
Evall
advertisement