advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দিল্লির দাঙ্গায় ৮০ মুসলিমকে বাঁচিয়েছেন এই শিখ

অনলাইন ডেস্ক
২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৩:৫০ | আপডেট: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:০০
মাহিন্দর সিং। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

ভারতের দিল্লিতে চলমান সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে শত শত মুসলিম ঘরবাড়ি, লুটপাট হয়েছে দোকান, হত্যা ছাড়াও দাঙ্গাকারীদের লাথি খেয়ে জন্মেছে ‘মিরাকল শিশু’।  ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি যখন মুসলিমদের জন্য আতঙ্কের কারণ তখন হিন্দুদেরই কেউ কেউ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নজির স্থাপন করেছেন। তাদেরই একজন উত্তর-পূর্ব দিল্লির গোকুলপুরীর বাসিন্দা মাহিন্দর সিং।

ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ‘শিখ নিউজ এক্সপ্রেস’ এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উগ্র হিন্দুত্ববাদী হাত থেকে গত ৬০-৮০ জন মুসলিমকে প্রাণে বাঁচিয়ে তাদের নিরাপদ আশ্রয়ে পৌঁছে দিয়েছেন মাহিন্দর এবং তার ছেলে ইন্দ্রজিৎ সিং। 

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি হিন্দু অধ্যুষিত গোলকপুরী এলাকায় বসবাসকারী মুসলিমদের বাড়িতে অজ্ঞাত পরিচয়ের দাঙ্গাকারীরা হামলা চালাচ্ছে বলে খবর পান মাহিন্দর। সঙ্গে সঙ্গে ছেলে ইন্দ্রজিৎকে ডেকে নিয়ে স্থানীয় মুসলিমদের বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে যান। তারপর ছেলের বুলেট মোটরসাইকেল ও নিজের স্কুটিতে করে ৬০ থেকে ৮০ জন মুসলিম প্রতিবেশীকে গোকুলপুরী থেকে এক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত মুসলিম অধ্যুষিত এলাকা করদমপুরে নিরাপদ আশ্রয়ে নামিয়ে দিয়ে আসেন।

মাহিন্দর বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতি দেখে ১৯৮৪ সালে দিল্লিতে হওয়া শিখ নিধন যজ্ঞের কথা মনে পড়ে যাচ্ছিল আমার। তাই হিন্দু বা মুসলিম কিছু দেখিনি। আমার চোখে শুধু মানুষ ভাসছিল। শুধু ছোট ছোট শিশুর মুখ চোখে পড়ছিল। এসব দেখে আমার মনে হয়, এরা সবাই আমার সন্তান। এদের কোনো ক্ষতি হতে দেব না আমি। মানবিকতার তাগিদেই প্রয়োজনের সময় তাদের সাহায্য করেছি আমরা। এছাড়া আর কী বা বলতে পারি?’

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) ও জাতীয় নাগরিক নিবন্ধনকে (এনআরসি) কেন্দ্র করে উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে গত কয়েকদিন ধরে চলা সাম্প্রদায়িক অশান্তির জেরে এখনও পর্যন্ত ৪৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। আহত হয়েছেন অন্তত ৩০০ শতাধিক।

 

advertisement
Evall
advertisement