advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পুনরায় ভোট চেয়ে ট্রাইব্যুনালে তাবিথ

আদালত প্রতিবেদক
৩ মার্চ ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩ মার্চ ২০২০ ০১:৪৩
advertisement

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ‘ভোট কারচুপি ও অনিয়মের’ অভিযোগ এনে নির্বাচন কমিশনের জারি করা ফলাফলের গেজেট বাতিল করে নতুন নির্বাচন চেয়ে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে আবেদন করেছেন বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়াল।

তার পক্ষে তার আইনজীবী এ কে এম এহসানুর রহমান গতকাল ঢাকার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ উৎপল ভট্টাচার্য্যরে আদালতে এ আবেদন করেন। মামলায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশন সচিব, যুগ্ম সচিব, জয়ী প্রার্থী আতিকুল ইসলাম, সিপিবির প্রার্থী আহমেদ সাজেদুল হক, ন্যাপের আসিছুর রহমান দেওয়ান, গণতান্ত্রিক পার্টির শাহিন খান ও ইসলামী আন্দোলনের শেখ মো. ফজলে বারী মাসুদকে বিবাদী করা হয়েছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে আতিকুল ইসলামকে বিজয়ী ঘোষণা করে গত ৪ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত গেজেট পুনর্মূল্যায়ন, মেয়রের অংশের নির্বাচন বাতিল করে পুনর্নির্বাচন চেয়েছেন তাবিথ। তিনি বলেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা থেকে শুরু করে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ভোটগ্রহণ ও ফলাফল গণণা পর্যন্ত নানা অনিয়ম ও কারচুপির তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করে আমরা এ মামলা দায়ের করেছি। আইনজীবী এহসানুর রহমান বলেন, আতিকুল ইসলামকে উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র ঘোষণা করে যে গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে, তা বাতিল এবং নতুন নির্বাচন চাওয়া হয়েছে মামলার আর্জিতে।

তাবিথ আউয়াল মামলাটি করার জন্য রবিবার বিকালে আদালতে গেলেও তা নেওয়া হয়নি। তাই গতকাল সকালে গিয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে আবেদন করেন। এহসানুর রহমান জানান, ২৩৮ পৃষ্ঠার আবেদনের সঙ্গে ৪৮৪ পৃষ্ঠার তথ্য-উপাত্ত যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। মোট ৪১ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে মামলায়। তাবিথ আউয়ালের অন্যতম আইনজীবী আইনজীবী তাহিরুল ইসলাম তৌহিদ বলেন, আদালত আবেদনটি শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন। শুনানির তারিখ এখনো দেওয়া হয়নি।

গত ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে পৌনে ২ লাখ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। নৌকায় তার ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোটের বিপরীতে তাবিথ আউয়াল ধানের শীষে পান ২ লাখ ৬৪ হাজার ১৬১ ভোট।

নির্বাচন কমিশন ৪ ফেব্রুয়ারি আতিকুল ইসলামকে উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে। সে অনুযায়ী সংক্ষুব্ধ প্রার্থীরা মঙ্গলবার পর্যন্ত নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করার সুযোগ পাবেন।

মামলা সম্পর্বে ওই আদালতের পেশকার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মামলার বিষয়ে আদালত এখনো কোনো আদেশ দেননি।

advertisement