advertisement
advertisement

করোনা ঝুঁকি নিয়েই কাজ করছেন ওয়েম্যানরা

সৈয়দপুর প্রতিনিধি
৩০ মার্চ ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩০ মার্চ ২০২০ ০০:৩৫
advertisement

নীলফামারীর সৈয়দপুর টু চিলাহাটি রেলপথ রক্ষণাবেক্ষণে করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি নিয়েই কাজ করছেন ওয়েম্যানরা। অথচ সরকার করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করার পাশাপাশি জনগণকে ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করেছে। এক কথায় সারাদেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন। সেখানে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এখনো দায়িত্ব পালন করছেন ওয়েম্যানরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। বন্ধ করে দিয়েছে যাত্রীবাহী ট্রেন ও রেলওয়ে কারখানাসহ রেলের বিভিন্ন দপ্তর। তবে মালবাহী ও তেলবাহী ট্রেন চলাচল চালু রয়েছে। সূত্র জানায়, সৈয়দপুর থেকে চিলাহাটি পর্যন্ত ৫২ কিলোমিটার রেলপথ দেখভালের জন্য দায়িত্বে রয়েছে ৯৩ জনের সমন্বয়ে একটি টিম। এর মধ্যে ৯ জন মহিলাসহ ৭৩ জন ওয়েম্যান এবং বাকি ২০ জনের মধ্যে রয়েছেন কী ম্যান, গ্যাং ম্যান ও ম্যাট। গতকাল দুপুরে সরেজমিন দেখা যায়, সৈয়দপুর-নীলফামারীর মাঝখানে সুবর্ণখুলী গ্রামের ওপর দিয়ে যাওয়া রেলপথে কাজ করছেন একদল ওয়েম্যান। এক প্রশ্নের জবাবে ওয়েম্যান শরিফুল ইসলাম জানান, রেলের অন্য কর্মচারীরা যখন ঘরে বসে করোনা ভাইরাস থেকে সাবধানতা অবলম্বন করছেন, তখন আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাঠে কাজ করছি। তিনি ওয়েম্যান ও তাদের পরিবারের নিরাপত্তার জন্য ছুটির দাবি জানান। ম্যাট মমিনুল বসুনিয়া জানান, কাজ বন্ধ থাকলে রেলের ফিটিংস মালামাল চুরির আশঙ্ক থাকে। তাই আমরা রেলের বৃহত্তর স্বার্থে কাজ করছি। তবে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে তিনি প্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রদানের দাবি জানান।

বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগ (ওপেন লাইন) সৈয়দপুর শাখার সভাপতি মো. হায়দার আলী বলেন, দেশের এমন পরিস্থিতিতে ওয়েম্যান দিয়ে কাজ করানো রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের একটি অমানবিক আচরণ। কাজেই বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে তাদের ছুটি দিয়ে বাসায় পরিজনদের সঙ্গে থাকার সুযোগ দেওয়া হোক। করোনা ভাইরাসের এমন পরিস্থিতিতে যদি কোনো ওয়েম্যান ক্ষতিগ্রস্ত হন তা হলে এর খেসারত ওই দপ্তরকে দিতে হবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সৈয়দপুর ডিভিশনের পার্মানেন্ট ওয়ে ইন্সপেক্টর (পিডব্লিউআই) মো. সুলতান মৃধা জানান, যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকলেও তেলবাহী ও মালবাহী ট্রেন চলাচল করছে। সে জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ওয়েম্যানরা কাজ করছেন। সাধারণ পোশাকে করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি নিয়ে ওয়েম্যানরা কাজ করছেনÑ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

advertisement