advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মসজিদে জামাত সংক্ষিপ্ত করতে বলল ইসলামিক ফাউন্ডেশন

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩০ মার্চ ২০২০ ১৯:৩৯ | আপডেট: ৩০ মার্চ ২০২০ ২১:২৮
advertisement

করোনাভাইরাসের কারণে দেশে লকডাউন চললেও সংক্ষিপ্ত আকারে মসজিদে জামাত চলবে বলে জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন (ইফা)। তবে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের আগে পুরো মসজিদ জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা এবং কারপেট-কাপড় সরিয়ে ফেলার আহ্বান জানানো হয়েছে।

আজ সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইফা জানায়, দেশের খ্যাতনামা আলেমদের সঙ্গে বৈঠক করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গতকাল রোববার আলেমদের নিয়ে বৈঠক করে ইফা। বৈঠকে আরব দেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মুসল্লিদের মসজিদে নামাজ বন্ধের বিষয়গুলো সামনে রেখে বাংলাদেশেও পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে মতামত চায় ইফা। কোনো কোনো আলেম পরামর্শ দেন, মসজিদ খোলা থাকবে। শুধু ইমাম-মুয়াজ্জিন ও খাদেমরা জামাতে নামাজ আদায় করবেন, মুসল্লিরা মসজিদে আসবেন না। তবে বেশিরভাগ আলেমের বিরোধিতার কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি ইসলামিক ফাউন্ডেশন। বরং পরিস্থিতির অবনতি ঘটলেও মসজিদে মুসল্লিদের অংশগ্রহণে জামাতে নামাজ বন্ধ করার পক্ষে নন অধিকাংশ আলেম।

ইফার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মসজিদে নিয়মিত আজান, ইকামত, জামাত ও জুমার নামাজ অব্যাহত থাকবে। তবে জুমা ও জামাতে মুসল্লিদের অংশগ্রহণ সীমিত থাকবে। ৮ ধরনের মুসল্লিদের মসজিদে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে ইফা। সেগুলো হলো :

১. যারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।

২. যাদের সর্দি, জ্বর, কাশি, গলা ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট আছে।

৩. যারা আক্রান্ত দেশ ও অঞ্চল থেকে এসেছেন।

৪. যারা উক্তরূপ মানুষের সংস্পর্শে গেছেন।

৫. যারা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত।

৬. বয়োবৃদ্ধ, দুর্বল, মহিলা ও শিশু।

৭. যারা অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত।

৮. যারা মসজিদে গিয়ে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা করেন তাদেরও মসজিদে না আসার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

ইফা আরও বলেছে, যারা জুমা ও জামাতে যাবেন তারা যাবতীয় সুরক্ষা ব্যবস্থা অবলম্বন করবেন। ওজু করে নিজ নিজ ঘরে সুন্নত ও নফল আদায় করবেন। শুধু জামাতের সময় মসজিদে যাবেন এবং ফরজ নামাজ শেষে দ্রুত ঘরে চলে আসবেন। সাবান দিয়ে বারবার হাত ধোয়া, মাস্ক পরা, জীবাণুনাশক দ্বারা মসজিদ ও ঘরের মেঝে পরিষ্কার রাখাসহ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সব নির্দেশনা মেনে চলবেন।

advertisement
Evall
advertisement