advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চাঁপাইনবাবগঞ্জে অনেকেই মানছে না নিরাপদ দূরত্ব

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি
৩১ মার্চ ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩১ মার্চ ২০২০ ০০:৩৮
advertisement

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে প্রশাসন সামাজিকভাবে নিরাপদ দূরত্বে থাকার জন্য গণবিজ্ঞপ্তি প্রচার করলেও অনেকেই তা মানছে না। বিশেষ করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার তহাবাজার ও নিউমার্কেট কাঁচাবাজারে এ নিয়মের বালাই নেই। এ ছাড়া সুযোগ বুঝে বিকাল ও সন্ধ্যায় শহরের কিছু কিছু মোড় ও পাড়া মহল্লায় চলছে জমজমাট আড্ডা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সকালে তহাবাজার এলাকার কাঁচাবাজারে ভোক্তারা নিরাপদ দূরত্ব বজায় না রেখে নিত্যপণ্য কিনছেন। এমনকি বিক্রেতারা মাস্ক পর্যন্ত ব্যবহার করছেন না। বাজারগুলোয় সরকারি নির্দেশনা একেবারে উপেক্ষিত। একই অবস্থা দেখা গেছে নিউমার্কেট সংলগ্ন কাঁচাবাজারে। এ ছাড়া ওষুধের দোকানগুলোয় সামাজিকভাবে দূরত্ব বজায় না রেখেই অনেককে ওষুধ কিনতে দেখা গেছে। এ ছাড়া উপজেলা শহরে ও গ্রাম পর্যায়ে সন্ধ্যায় দোকানে চা, পান ও সিগারেট বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে করোনা সংক্রমণের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে সেসব মানুষ।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক এজেডএম নূরুল হক জানান, সংক্রমণ প্রতিরোধে শহর ও ইউনিয়ন পর্যায়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে না হওয়ার নির্দেশনা দিচ্ছে। এ নির্দেশনা না মানলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিতে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন মুদি দোকান ও ফার্মেসিগুলোয় নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে ক্রেতাদের জন্য চক দিয়ে বৃত্ত এঁকে দিচ্ছেন।

হোম কোয়ারেন্টিনে ৯০৯ জন : এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও দুজন বেড়ে হোম কেয়ারেন্টিনে থাকার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯০৯ জনে। অন্যদিকে ১৪ দিন মেয়াদ শেষ হওয়ায় আরও ৫৪ জনকে কোয়ারেন্টিন থেকে মুক্ত করা হয়েছে। সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী জানান, গতকাল সোমবার সকাল পর্যন্ত জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। এদিকে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অংশ হিসেবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের বিভিন্ন রাস্তা ও এলাকায় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন অভিযান পরিচালনা করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। এ ছাড়া জেলা প্রশাসক এজেডএম নূরুল হক জানান, নিম্ন আয়ের লোকজনের খাদ্য সহায়তা হিসেবে জেলার ৫টি উপজেলায় ৪টি পৌরসভায় ২২৮ টন চাল এবং ১২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে।

advertisement
Evaly
advertisement