advertisement
advertisement

শঙ্কা বাড়িয়ে দিলেন পেইন

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১ এপ্রিল ২০২০ ০০:৪২
advertisement

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে গোটা বিশ্ব। ক্রীড়াঙ্গনও এর বাইরে নয়। বন্ধ হয়ে গেছে অলিম্পিক, ফুটবল, ক্রিকেটসহ সব ইভেন্ট। কবে নাগাদ সবকিছ– আবার আগের মতো স্বাভাবিক হবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউই। বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতিতে স্থগিত হতে পারে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ। আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দুটি ম্যাচ খেলতে আগামী জুনে বাংলাদেশ সফরে আসার কথা ছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার। তবে এ সিরিজ হওয়ার খুব একটা সম্ভাবনা দেখছেন না টিম পেইন। বাংলাদেশ সফর প্রসঙ্গে অজি অধিনায়ক বলেছেন, ‘এটা বুঝতে আইনস্টাইন হতে হয় না যে খুব সম্ভবত এ সফর হচ্ছে না, অন্তত জুনে। তবে সিরিজটি সম্পূর্ণ বাতিল হয়ে যাবে নাকি পিছিয়ে যাবে, সেটি এখনই বলা মুশকিল।’

ভাইরাস পরিস্থিতিতে খেলার চেয়ে মানুষের সুস্থতা ও স্বাভাবিক জীবনযাপন বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন টিম পেইন। এমন পরিস্থিতিতে তাই ক্রিকেট নিয়ে খুব একটা ভাবার আগ্রহ পাচ্ছেন না অস্ট্রেলিয়ার ৩৫ বছর বয়সী এ উইকেটরক্ষ-ব্যাটসম্যান। ক্রিকেটের চেয়ে স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তা নিয়েই বেশি চিন্তিত টিম পেইন। ইংল্যান্ড ২০২১-২২ অ্যাশেজের পরিকল্পনা শুরু করে দিলেও পেইন বলছেন, তারা অ্যাশেজ নিয়ে ভাবছেন না। বরং টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলা এবং শিরোপা জেতাটাই তাদের এখন প্রধান লক্ষ্য।

সূচি অনুযায়ী বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রথম টেস্ট মাঠে গড়ানোর কথা ছিল ১১ জুন, চট্টগ্রামে। ১৯ জুন থেকে ঢাকা টেস্ট শুরু। টিম পেইন বলেন, ‘আমার মনে হয়, হয়তো কিছু সিরিজ বাতিল হবে আবার হয়তো কিছু সিরিজ সামনে এগোবে অথবা কিছু সিরিজ হয়তো স্থগিত করে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা যেতে পারে। আমরা যদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ সম্পন্ন করতে চাই, তবে খেলোয়াড়দের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অনেক বেশি ক্রিকেট খেলতে হবে।’ আগামী বছরের জুনে বিশ্ব আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। এর মধ্যে সিরিজ বাতিল বা স্থগিত করার ক্ষমতা রয়েছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির। বিশ্ব আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ভারত। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। তিনে নিউজিল্যান্ড। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক জানিয়ে দিয়েছেন তারা ফাইনাল খেলতে চান এবং শিরোপা ঘরে তুলতে চান। বলেন, ‘সব খেলোয়াড়ই এ পয়েন্ট সিস্টেমটা খুব উপভোগ করছে এবং প্রকৃত সত্যিটা হচ্ছে প্রতিটি টেস্ট ম্যাচই হিসেবে হচ্ছে এবং মনে করতে পারেন আপনি সেরা অবস্থানে যাওয়ার জন্যই খেলছেন।’ বলে রাখা ভালো, বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে এ পর্যন্ত ১০ ম্যাচে ২৯৬ পয়েন্ট অস্ট্রেলিয়ার। ৯ ম্যাচে ভারতের সংগ্রহ ৩৬০ পয়েন্ট। নিউজিল্যান্ডের অর্জন ৭ ম্যাচে ১৮০ পয়েন্ট। বাংলাদেশ ৩ ম্যাচ খেলেছে। তিনটিতেই হেরেছে। কোনো পয়েন্ট নেই। টেবিলের একদম তলানিতে (নবম) টাইগাররা।

করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের ক্রিকেটপাড়ায় সুনসান নীরবতা। প্রিমিয়ার লিগের প্রথম রাউন্ড শেষে ক্রিকেট অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে বিসিবি। খেলোয়াড়রা এখন গৃহবন্দি। বিসিবির নির্দেশনা মোতাবেক বাসায় থেকে নিজেকে ফিট রাখার জন্য পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। কবে নাগাদ ক্রিকেট মাঠে ফিরবে তা কেউই জানেন না। বিসিবি সভাপতি ক্রিকেট বন্ধ ঘোষণা করার দিনে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তারা অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছেন। সবকিছু আবার স্বাভাবিক হলে তবেই মাঠে ফিরবে ক্রিকেট। খেলোয়াড়দেরও মাঠে ফেরার জন্য তর সইছে না। তবে করোনা ভাইরাসের কারণে গৃহবন্দি থাকা ছাড়া কারোরই এখন করার কিছু নেই।

advertisement