advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ফাঁকা ঢাকা অনিরাপদ মাঠে চুরি-ছিনতাই প্রতিরোধ টিম

এটিএম বুথের নিরাপত্তাকর্মীরা আতঙ্কে

হাবিব রহমান
১ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১ এপ্রিল ২০২০ ০১:১৪
advertisement

সরকারি ছুটি ঘোষণার পর ঢাকা ছেড়ে গ্রামে যান বিপুল সংখ্যক মানুষ। সামাজিক দূরত মেনে চলার প্রচারণার পাশাপাশি নগরবাসীকে ঘরে থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে ফাঁকা ঢাকার নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ফাঁকা ঢাকায় কাজ করছে পুলিশের চুরি ছিনতাই প্রতিরোধ টিম। বাড়ানো হয়েছে পুলিশ-র‌্যাবের তল্লাশি চৌকি ও টহল টিমের সংখ্যা। এছাড়া নগরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারী চলছে। এদিকে, ফাঁকা ঢাকার এটিএম বুথের নিরাপত্তা কর্মীরা আতঙ্কে থাকার কথা জানিয়েছেন।
পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা জানান, নভেল করোনাভাইরা নিয়ে কাজ করছেন সারাদেশে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য।
তবে এর মধ্যেও জনশুন্য হয়ে পড়া ঢাকার বিশেষ নিরাপত্তার কথা ভোলেনি পুলিশ।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ২৬ মার্চ থেকে ছুটি ঘোষণার আগে থেকেই ঢাকা ছেড়েছেন বিপুল সংখ্যক মানুষ। এরই মধ্যে গতকাল ছুটির মেয়াদ ৪ এপ্রিল থেকে বাড়িয়ে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। নভেল করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারণে ঢাকায় অবস্থানকারীরাও তুলনামূলক কম বের হচ্ছেন। অঘোষিত লকডাউনের ছুটি ঘোষণার প্রথম দুই দিন ঢাকা নজিরবিহীন ফাঁকা হয়ে পড়ে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কিছুটা নমনিয় হওয়ার পর এখন কিছু মানুষ অলিগলিতে বেরিয়ে পড়ছেন।
তারপরও সার্বিক দিক বিবেচনা করে ফাঁকা ঢাকার নিরাপত্তায় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। যদিও করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে ঢাকায় অপরাধ প্রবণতা কিছুটা কমেছে। তবে ঢাকা ছাড়া মানুষের বাসা এবং জরুরী ও নিত্যপণ্যের বাইরে সব অফিস আদালত বন্ধ থাকায় সেসব স্থাপনার নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন অনেকেই।
রাজধানীর অন্যতম ব্যস্ত এলাকা ফার্মগেটের চিত্র এখন একেবারে আলাদা। গত রোবববার ও সোমবার ফার্মগেটের কয়েকটি এটিএম বুথ ঘুরে দেখা গেছে নিরাপত্তাকর্মীদের মাঝে আতঙ্ক। ফার্মগেট মোড়ের একটি এটিএম বুথের নিরাপত্তাকর্মী মো. আল আমিন আমাদের সময়কে বলেন, এমন ঢাকা কখনও দেখি নাই। রাতের অবস্থা ভয় ধরানোর মতো নিস্প্রাণ। অনেকেই বুথে টাকা তুলতে আসছেন তাই আমাদের থাকতেই হয়। কিন্তু ভয় লাগে যদি ডাকাত এসে পড়ে! চিৎকার করলে কাউকে পাওয়াও যাবে না। করোনা ছাড়াও নিরাপত্তা নিয়েও ভয় লাগছে। প্রায় একই চিত্র দেখা গেছে রাজধানীর কয়েকটি এলাকার এটিএম বুথ ঘুরে।
এদিকে, রাজধানীতে থানা ভিত্তিক ছিনতাই-চুরি প্রতিরোধ টিম কাজ করছে বলে জানিয়েছে পুলিশ কর্তৃপক্ষ।
ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল জোনের সিনিয়র এসি জাহিদুল ইসলাম সোহাগ আমাদের সময়কে বলেন, পল্টন, মতিঝিল থানা এলাকায় নিয়মিত কাজ করছে চুরি ছিনতাই প্রতিরোধ টিম। তারা নিয়মিত টহল দিচ্ছে। এছাড়া এই দুই থানা এলাকার এটিএম বুথের নিরাপত্তাকর্মীদের কাছে টহল টিমের এবং থানার ডিউটি অফিসারের নাম্বার দিয়ে রাখা হয়েছে। কেউ কোন সমস্যা মনে করলে সঙ্গে সঙ্গে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।
ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র মো. মাসুদুর রহমান আমাদের সময়কে বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় কাজ করার পাশাপাশি নিরাপত্তার দিকটিও সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। ঢাকার রাস্তায় পুলিশের পাশাপাশি সেনা সদস্যরাও টহল দিচ্ছেন। নিরাপত্তা নিয়ে ভয়ের কোন কারণ নেই।
র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম আমাদের সময়কে বলেন, রাজধানীসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে র‌্যাবের টহল ও তল্লাশি চৌকি বাড়ানো হয়েছে। কাউকে সন্দেহ হলেই তল্লাশি করা হচ্ছে। সব ধরনের পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

advertisement