advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সাফ গেমস জিতলে আক্ষেপ থাকবে না : সোহেল রানা

৬ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০
আপডেট: ৭ এপ্রিল ২০২০ ১৫:১৪
advertisement

 

এশিয়ান ফুটবলে অনেকে সোহেল রানাকে চেনেন ও জানেন। বাংলাদেশের আক্রমণভাগে দুর্বার এক ঝড় তিনি। ঢাকা আবাহনীর প্রাণভোমরা রানা স্ট্রাইকার হিসেবে জাত চিনিয়েছেন অনেক আগেই। ২০১৩ সাল থেকে খেলছেন লাল-সবুজের জার্সি পরে। মতিঝিলপাড়ার ২৫ বছর বয়সী এই ফুটবলার করোনা ভাইরাসের মধ্যে ঘরে থাকছেন। আর মাঝে মাঝে জিমে যাচ্ছেন। গত বছরের আগস্টে এএফসি কাপে উত্তর কোরিয়ান ক্লাব টোয়েন্টিফাইভ এফসির সঙ্গে দারুণ এক গোল করেন আবাহনীর হয়ে। সেরা গোলের তালিকায় লড়াই করে দ্বিতীয় হয়েছেন। সপ্তাহসেরা গোল ছিল। মৌসুমসেরার ভোটে পিছিয়ে পড়েন তিনি। করোনা ভাইরাসের এই দুঃসময়ে ফুটবলের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে কথা বলেছেন দৈনিক আমাদের সময়ের ক্রীড়া প্রতিবেদক মাইদুল আলম বাবুর সঙ্গে। পাঠকের জন্য কথোপকথন তুলে ধরা হলোÑ

আমাদের সময় : কী করছিলেন। বাসায় আর কতক্ষণ থাকা যায়?

সোহেল রানা : বাসায় ছিলাম। একটু আগে জিমনেশিয়ামে গিয়েছিলাম। একা একা কিছুক্ষণ ফিটনেসের ওপর কাজ করলাম। বাসায় বসে থেকে থেকে বিরক্ত হয়ে গেছি। তবে আমি নিয়ম-কানুন মেনে চলি। মাস্ক ও বিশেষ পোশাক পরেই বের হই। হাত ধুয়েছি অনেকক্ষণ ধরে। ফিটনেস নিয়ে কাজ করতেই হবে। কবে খেলা শুরু হবে সেটা তো আমরা জানি না।

আমাদের সময় : ফিটনেসে কী কী করছেন এই সময়ে?

সোহেল রানা : জিমের পাশাপাশি সাইক্লিং করছি। আর বাসায় বিশেষ ব্যবস্থা আছে। স্ট্রেচিং ও অন্য কাজ করছি। কোচের নির্দেশনা মেনে কাজ করতে হয়। আমার নিজেরও কিছু পরিকল্পনা রয়েছে। সে মোতাবেক চলতে হচ্ছে। আবার কবে ফুটবল ফিরবে আসলে জানি না। এই সময় নিজেদের ধরে রাখা কঠিন হচ্ছে।

আমাদের সময় : আবার যখন লিগ বা অন্য খেলা শুরু হবে তখন সমস্যা হবে না?

সোহেল রানা : অবশ্যই হবে। লিগটা (বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ) চালু হয়েছিল। আমরা ছন্দে ছিলাম। আবার যখন চালু হবে আমাদের নতুন করে সব শুরু করতে হবে। এটা সত্যিই কষ্টের হবে। আমাদের জন্য খুব চ্যালেঞ্জের হবে ব্যাপারটা। খেলা শুরু হয়ে যাওয়ার পর আসলেই কঠিন এটা। আমাদের সেই মৌসুম শুরুর অবস্থায় যেতে কষ্ট হবে।

আমাদের সময় : আপনার সব সময় লক্ষ্য কী?

সোহেল রানা : আমার লক্ষ্য চ্যাম্পিয়ন হওয়া। সব সময় দল নিয়ে ভাবি। আমি ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে বিশ্বাসী নই। আমি ভালো খেলব আর দলকেও সফলতা পেতে হবে, তা হলেই আমি খুশি।

আমাদের সময় : এএফসি কাপে আপনার সেই বিস্ময় গোল নিয়ে বেশ আলোচনা হয়। ক্যারিয়ারে আরও এমন গোল করতে চান কিনা?

সোহেল রানা : ওই গোলটা আমার মনে থাকবে সারাজীবন। আরও এমন গোল হবে কিনা জানি না। তবে সেই গোলটি সপ্তাহ সেরা ছিল। আর বর্ষসেরাও হয়ে যেত। অবশ্য গোলটি দ্বিতীয় সেরা হয়েছে। আমি লাখের ওপর ভোট পেয়েছি। এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনে অন্যতম সেরা গোল এটা। সামনে আমি ভালো খেলতে চাই এবং ক্লাব ও দেশকে সহযোগিতা করতে চাই।

আমাদের সময় : করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি নিয়ে কিছু বলেন। দীর্ঘদিন ফুটবল নেই। সবার মনে হাহাকার।

সোহেল রানা : বিশ্বের পরিস্থিতি দেখছি। আসলে খুবই ভীতিকর পরিস্থিতি। সবাইকে বলব বাইরে যাওয়ার দরকার নেই। সব নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হবে। সবকিছু বন্ধ হয়ে গেছে। আশা করি একদিন সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে। আমরা দ্রুতই ফুটবলে ফিরব। সবাই ফুটবল ভালোবাসে। এমন পরিস্থিতি আমরা কখনো দেখিনি। আর ফুটবল তো অবশ্যই মিস করবে। অনেকে সারারাত ধরে খেলা দেখেন। আমাদেরও ভালো লাগছে না। তবে বিশ্বের পরিস্থিতি বিবেচনা করে মনকে শান্ত রাখতে হচ্ছে। আর্থিক ধাক্কা আসবে। যদিও সবাই বিপদে পড়বেন না। তবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব খেলা শুরু হওয়া দরকার।

আমাদের সময় : দেশের বাইরে কার খেলা দেখেন। প্রিয় খেলোয়াড়, কোচ ও ক্লাব কোনটা?

সোহেল রানা : দেশের বাইরের খেলা সেভাবে দেখা হয় না। ইউটিউবে দেখা হয়। রাত জাগার নিয়ম নেই। আমাদের ভোরে উঠে অনুশীলন করতে হয়। তবে আমার পছন্দের খেলোয়াড় লিওনেল মেসি। আমার দেখা সর্বকালের সেরা ফুটবলার তিনি। ক্লাব অবশ্য বার্সেলোনা ও দ্বিতীয় পছন্দ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। কোচ হিসেবে বলতেই হবে স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন ও হোসে মরিনহোর নাম।

আমাদের সময় : কীভাবে ফুটবলের প্রতি টান অনুভব করলেন। আর কী হতে চেয়েছিলেন?

সোহেল রানা : ছোট থেকেই ফুটবলার হতে চেয়েছি। স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে যেতাম। আবাহনী ও মোহামেডানের খেলা দেখে অনুপ্রাণিত হতাম। ইংল্যান্ডে ১ মাস ছিলাম। আর সবার অনুশীলন দেখতে যেতাম। এভাবেই ফুটবলের প্রতি প্রেম জন্মে যায়। আমার প্রথম ক্লাব মোহামেডান। এর পর শেখ জামাল ও চট্টগ্রাম আবাহনীতে ১ বছর খেলেছি। আবাহনীতে ৩ বছর ধরে রয়েছি।

আমাদের সময় : আপনি জীবনে আর কী পেলে সবচেয়ে ভালো হয়?

সোহেল রানা : চ্যাম্পিয়ন হওয়া লক্ষ্য সব সময়। আর বাংলাদেশের হয়ে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জিততে চাই। এটা জিততে পারলে মনে শান্তি পেতাম। আর ফুটবল আমার ধ্যান ও জ্ঞান। আশা করি ভালো কিছু করতে পারব। দেশকে ও ক্লাবকে সর্বোচ্চটা দিতে চাই।

 

একনজরে সোহেল রানা

হ পুরো নাম : সোহেল রানা

হ জন্ম : ২৭ মার্চ, ১৯৯৫

হ যেখানে জন্ম : আরামবাগ, ঢাকা, বাংলাদেশ

হ উচ্চতা : ৫ ফুট সাড়ে ৯ ইঞ্চি

হ বর্তমান ক্লাব : আবাহনী

হ জার্সি নম্বর : ৭

হ দেশ : বাংলাদেশ জাতীয় দল

 

advertisement