advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘ফেডে তো মানে না পোলাপানেও বোঝে না’

রতন ভৌমিক ঈশ^রগঞ্জ
৬ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৬ এপ্রিল ২০২০ ০০:৫৪
advertisement

‘আমি মানলে কী অইবো, ফেডে (পেটে) তো মানে না। কামাই থাওক বা না থাওকÑ সন্ধ্যায় চাল-ডাল নিয়া ঠিকই বাড়ি যাওন লাগব, না অইলে পরিবারের বেহেরেই (সবার) উবাস থাহন লাগব। আর আমরা দুইজন না হয় কষ্ট কইরা থাকলাম, পোলাপান তো বোঝে না।’ সরকারি নির্দেশনা না মেনে রাস্তায় বের হওয়ার কারণ জানতে চাইলেই কষ্টের কথাগুলো বললেন ময়মনসিংহের ঈশ^রগঞ্জ উপজেলার কুমড়াশাসন গ্রামের চার সন্তানের জনক রিকশাচালক আবু হানিফা।

জানা গেছে, করোনা মোকাবিলায় সারাদেশে অঘোষিত লকডাউনের ফলে নিম্নআয়ের মানুষের উপার্জন কমে যাওয়াদের একজন রিকশাচালক এই আবু হানিফা। ছয় সদস্যের পরিবারে তিনিই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তার রিকশা চালানোর উপার্জিত অর্থেই পরিবারের ভরণপোষণ করতে হয়।

হানিফা বলেন, এতদিন কোনোরকমে চলে যেত তার সংসার। বর্তমানে অন্যান্য যানবাহনের মতো সিএনজি ও ব্যাটারিচালিত অটোবাইক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও প্যাডেল রিকশায় কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, করোনা মোকাবিলায় উপজেলাব্যাপী সরকারি বরাদ্দের পাশাপাশি উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে সবার মাঝেই খাদ্য বিতরণ করা হবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্র্যন্ত খাদ্য সহায়তার কার্যক্রম চলমান থাকবে।

advertisement