advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চাঁদপুরে হোম কোয়ারেন্টিন না মেনে সড়কে মানুষ-যানবাহন

এমএ লতিফ চাঁদপুর
৬ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৬ এপ্রিল ২০২০ ০০:৫৪
advertisement

মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে জনসাধারণের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা মানছে না চাঁদপুরের অনেকেই। সড়কে প্রতিদিনই বাড়ছে যানবাহন। এমনকি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য রাস্তাঘাটে কাউকে অতিপ্রয়োজন ছাড়া বের না হওয়ার কথা ঘোষণা দেওয়া হলেও হাটবাজার, দোকানপাটে মিলছে মানুষের কমবেশি উপস্থিতি।

অথচ সরকার মরণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে গত ২৬ মার্চ থেকে সরকারি ছুটি ঘোষণা করে। ফলে বন্ধ হয়ে যায় সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, স্কুল, কলেজসহ সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান। এর পর থেকে চাঁদপুরের বিভিন্ন স্থানে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কঠোর নজরদারি শুরু হয়। সরকারি এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে সেনাবাহিনীর সদস্যরাও নেমে পড়েন মাঠে। যাতে কোনো প্রকার যানবাহন ও মানুষজন বাইরে বের হতে না পারে।

প্রথম দু-তিন দিন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভয়ে বা আতঙ্কে রাস্তাঘাটে তেমন যানবাহন কিংবা মানুষের উপস্থিতি লক্ষ করা যায়নি। এমনকি শহরের কোনো স্থানেই চায়ের দোকানসহ কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলেনি। কিন্তু কয়েক দিন পর থেকেই ধীরে ধীরে শহরের বিভিন্ন স্থানে যানবাহন ও মানুষের উপস্থিতি বাড়তে থাকে।

কয়েক দিন ধরে দেখা গেছে, চাঁদপুর শহরের পালবাজার, শপথ চত্বর, কালীবাড়ি, বাসস্ট্যান্ড, ছায়াবাণী মোড়, নতুনবাজার, পুরানবাজার, মিশন রোড, চিত্রলেখা মোড়, চেয়ারম্যান ঘাটা, ওয়্যারলেস বাজারসহ শহরের বিভিন্ন সড়কে ট্রাক পিকআপ ভ্যান, রিকশা, অটোরিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহন সড়কে চলতে শুরু করেছে। এসব যানবাহনের সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মানুষের উপস্থিতিও। প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সাধারণ মানুষের অবাধে চলাফেরা করোনা ভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি থাকতে পারে বলে মনে করছে সচেতন মহল।

সনাক চাঁদপুরের সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ মনোহর আলী বলেন, করোনা সংক্রমণ এড়াতেই সরকার সারা দেশের সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছে। এর পরও যদি আমরা নিয়ম না মেনে বাইরে বের হই, আর করোনায় আক্রান্ত হই, তাতে ক্ষতি আমাদেরই হবে বেশি। তাই সবাইকে নিয়ম মানার জন্য আহ্বান জানান তিনি। এদিকে নিয়ম না মানার কারণে কঠোর অবস্থানে রয়েছে চাঁদপুরের প্রশাসন। শহরের শপথ চত্বর, পালবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় যানবাহন আটক করা হচ্ছে। এ ছাড়া সাধারণ মানুষের অবাধ চলাফেরায় কঠোরভাবে সতর্ক করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে চাঁদপুর সদর সার্কেল জাহেদ পারভেজ চৌধুরীর সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার থেকেই আমরা জেলা পুলিশ আরও কঠোর অবস্থানে রয়েছি। বিনা কারণে বাইরে ঘোরাফেরা করা লোকজনকে ঘরে থাকার জন্য পরামর্শ দিচ্ছি। প্রয়োজনে কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ করা হবে।

advertisement
Evall
advertisement