advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিএনপিসহ সব দলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান আওয়ামী লীগের

নিজস্ব প্রতিবেদক
৭ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৭ এপ্রিল ২০২০ ০০:৩৩
advertisement

দেশের এই ক্রান্তিকালে পারস্পরিক দোষারোপ না করে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে বিএনপিসহ দেশের সব রাজনৈতিক দলকে ঐক্যবদ্ধভাবে জনগণের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘ভয়াবহ এ দুর্যোগের সময় আমাদের সকলের উচিত ঐক্যবদ্ধভাবে, সম্মিলিত প্রয়াসে সংকট থেকে দেশ ও জাতিকে উদ্ধার করা। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সব রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের জনগণকে মানবিক বিপর্যয়ের এই সময়ে এক প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে অসহায় মানুষদের সহযোগিতা করার আহ্বান জানাচ্ছি।’

গতকাল সোমবার বিকালে সংসদ ভবনের সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও বার্তায় তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোকে বলছিÑ সম্মিলিত প্রয়াসে আজকের এই সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনকল্যাণে বাস্তবসম্মত যে মহতী উদ্যোগ নিয়েছেন, আমরা একযোগে সেখানে কাজ করি। এই সংকট থেকে উত্তরণে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করি। এটাই হোক এই সময়ে সবার প্রত্যাশা। এটাই এই সময়ে জনগণের প্রত্যাশা। কাজেই পরস্পরকে দোষারোপ না করে আসুন আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে একসঙ্গে কাজ করি।’

এ সময় ওবায়দুল কাদের করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে দেশে-বিদেশে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং যারা চিকিৎসাধীন আছেন, তাদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমাদের সকলেরই অদৃশ্য শত্রু করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকট জীবন-জীবিকা দুটি বিষয়কেই বিপদগ্রস্ত করে দিযেছে। বিশ্বব্যাংক আইএফআইসহ বিশ্বের সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো বৈশ্বিক অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কা করছে। জাতীয় অর্থনীতিতে এই ক্ষতি মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবাদ সম্মেলন করে ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার বিশাল প্রণোদনা প্যাকেজ ও সাহসী কর্মপরিকল্পনা ঘোষণা করেছেন, যা জিডিপির দুই দশমিক ৫২ শতাংশ। বিশ্বজুড়ে এই সংকটে বাংলাদেশের অর্থনীতির ওপর সম্ভাব্য নেতিবাচক প্রভাবগুলো বিচার-বিশ্লেষণ করেই প্রধানমন্ত্রী এই প্যাকেজ প্রণোদনা ও পরিকল্পনা জাতির সামনে তুলে ধরেছেন। এটা শুধু বিত্তবানদের স্বার্থকেই সমর্থন করবে, এমন বক্তব্য যারা দিয়েছেন তারা অর্বাচীনের মতো বক্তব্য দিয়েছেন। এই প্যাকেজ শুধু বিত্তবানদের জন্য নয়, বিত্তহীন সাধারণ মানুষের স্বার্থে এই প্যাকেজ প্রণোদনা ঘোষণা করেছেন।’

বিএনপি মহাসচিবের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর এই প্যাকেজ প্রণোদনা শুধু বিত্তবানদের স্বার্থরক্ষা করবেÑ এমন ভিত্তিহীন বক্তব্য দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি যদি এটি ভালোভাবে লক্ষ করেন, পড়ে দেখেন, তা হলে বুঝতে পারবেন এতে বিত্তবানদের চাইতে সাধারণ মানুষদের স্বার্থই এখানে প্রাধান্য পেয়েছে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উচিত ছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানানো। কিন্তু তিনি তা না করে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে এই প্যাকেজ প্রণোদনা নিয়ে অহেতুক অবাস্তব বক্তব্য রেখেছেন।’

তিনি আরও বলেন, মির্জা ফখরুল প্রণোদনা প্যাকেজ ও আর্থিক বরাদ্দের মধ্যে পার্থক্য নির্ণয় করতে আমার মনে হয় ব্যর্থ হয়েছেন। প্রণোদনা প্যাকেজ মানে বাজেট বরাদ্দ বা ক্যাশ ট্রান্সপ্লান্ট নয়। সংকটে অর্থনীতিকে আগের গতিশীলতায় ফিরিয়ে আনতে সম্ভাব্য পিছিয়ে পড়া খাতগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে প্রণোদনা প্যাকেজ দেওয়া হয়। মির্জা ফখরুল এই বাস্তবতাটুকু সম্ভবত বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন। এই অর্থ যখন বাজারে আসবে তখন এর সুফল বিত্তবান, মধ্যবিত্ত, খেটে খাওয়া স্বল্পআয়ের মানুষ এবং সাধারণ গরিব কর্মহীন মানুষ সবাই এই সুফল পাবে। এই প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সব শ্রেণি পেশার মানুষ অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন।

advertisement