advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নিম্নআয়ের মানুষের সুরক্ষায় খাদ্য সহায়তায় গুরুত্বারোপ

ডাবলু কুমার ঘোষ চাঁপাইনবাবগঞ্জ
৯ এপ্রিল ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৮ এপ্রিল ২০২০ ২১:৪০
advertisement

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও এর সংক্রমণ থেকে রক্ষার্থে ঘরমুখী নিম্নআয়ের মানুষকে সুরক্ষা দিতে খাদ্য সহায়তা ও নগদ অর্থ প্রদান অব্যাহত রেখেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসন। এই সংকট যতদিন থাকবে, ততদিনই সমাজের ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে সহায়তা প্রদানের পরিকল্পনার কথা জানালেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক এ. জেড. এম নূরুল হক।

জেলা প্রশাসক বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মানুষকে সচেতন করা এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্বাস্থ্য নির্দেশিকা মেনে চলতে হবে। সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। অতিজরুরি কাজ ছাড়া বাইরে বের হওয়া যাবে না। সমাজের সব স্তরের মানুষের সহায়তা নিয়ে প্রশাসন এই করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধে কাজ করছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও এর সংক্রমণ থেকে রক্ষার্থে ঘরমুখী নিম্নআয়ের মানুষের অন্ন নিশ্চিতে গতকাল বুধবার পর্যন্ত জেলায় বরাদ্দকৃত ৬৪৮ টন চালের মধ্যে ৩৭১ টন চাল ৩৭১০০ পরিবারের মধ্যে বিতরণ এবং বরাদ্দকৃত ৩১ লাখ ৫ হাজার টাকার মধ্যে ১৬ লাখ ৪ হাজার টাকা ৬৪১৬টি পরিবারের মাঝে বণ্টন করা হয়েছে। জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সকল ধরনের প্রস্তুতি হিসেবে কাজ করছে। পাশাপাশি একটি মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে। করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য ৫টি উপজেলা হাসপাতাল ও সদর হাসপাতালে একটি করে আইসোলেশন ইউনিট স্থাপন, কোভিড-১৯ চিকিৎসায় প্রস্তুতকৃত ৩৫টি বেড, ৭০ জন ডাক্তার, ২৫০ জন নার্স, ১৪৮৩ পিপিই এবং ১৪৮৩টি মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, আমরা জেলায় ব্যক্তিপর্যায়ে ত্রাণ বিতরণে নানামুখী অসুবিধা ও সমন্বয়ের অভাব দেখতে পেয়েছি। অনেক ক্ষেত্রে একই ব্যক্তি প্রয়োজনের তুলনায় বেশি পরিমাণে ত্রাণ পায়, আবার অনেকেই ত্রাণ পায় না। এ কারণে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ‘সমন্বিত ত্রাণ কার্যক্রম’ পরিচালনার জন্য সকলের সহযোগিতা চেয়ে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছি। আর মাঠপর্যায়ে ত্রাণ বিতরণে কোনো অনিয়ম পেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এক্ষেত্রে অনিয়মকারী ব্যক্তি, তারা যতই প্রভাবশালী হোক না কেন, তাদের কোনো ছাড় করা হবে না। সমাজের অসহায় ও দুস্থ মানুষ যাতে সহায়তা পায়, এজন্য প্রশাসনের প্রস্তুতকৃত তালিকা অনুযায়ী যাতে সবাই ন্যায়ভিত্তিক প্রয়োজনের ভিত্তিতে সময়ানুগ ত্রাণ পায় প্রশাসন সে লক্ষ্যেই কাজ করছে। তিনি আরও বলেন, জেলা প্রশাসন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ত্রাণ বিতরণ করছে। প্রশাসন দুস্থ মানুষকে ঘরে ঘরে ত্রাণ বিতরণের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে, যাতে করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সহজতর হয়।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার স্থিতিশীল রাখতে কঠোরভাবে বাজার মনিটর করা হচ্ছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে। তিনি জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ একটি সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় করোনা ভাইরাস বিস্তারে সীমান্তে মনিটরিং কার্যক্রম চলমান রয়েছে। ভারত থেকে সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন দিয়ে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়েছে। আর সোনামসজিদ বন্দর তথা অন্যান্য সীমান্ত দিয়ে কেউ যাতে অবৈধভাবে প্রবেশ করতে না পারে, সেজন্য বিজিবির পক্ষ থেকে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

advertisement