advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বেসরকারি হাসপাতালেও করোনা পরীক্ষা হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
১১ এপ্রিল ২০২০ ১৫:০৫ | আপডেট: ১১ এপ্রিল ২০২০ ১৫:৪৮
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। পুরোনো ছবি
advertisement

দেশের বেশ কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। আজ শনিবার দুপুর আড়াইটায় মহাখালী থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে যুক্ত হয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে শনাক্ত ও মৃত্যু দুটোই কমেছে। করোনায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৫৮ জন, আর মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যু হয়েছে ৩০ জনের। আর মোট আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ৪৮২ জন।

স্বাস্থ্য বুলেটিনে করোনার চিকিৎসাসেবা প্রসঙ্গে জাহিদ মালেক বলেন, ‘বেসরকারি হাসপাতালগুলো এগিয়ে আসছে। আমরা আনন্দিত যে তারা এখন চিকিৎসা দিচ্ছে। তাদের বেশ কয়েকটি হাসপাতালকে আমরা করোনার চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসবো। এই সবগুলো হাসপাতালই সুসজ্জিত রয়েছে।’

করোনার রোগীদের জন্য বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টার ২ হাজার বেডে উন্নীত করা হচ্ছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা সিটি উত্তর করপোরেশনে ১৩শ বেডে উন্নীত করা হচ্ছে। উত্তরা দিয়াবাড়ির চারটি বহুতল ভবনকে আমরা ১২শ বেডে উন্নীত করছি। সর্বমোট এখানে সাড়ে ৪ হাজার বেডের সংস্থান হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আরও বেশ কয়েকটি হাসপাতালকে করোনার জন্য প্রস্তুত করা প্রয়োজন। আমাদের বেশ কয়েকটি হাসপাতালের চিন্তাভাবনা রয়েছে। তার মধ্যে আগামীতে হয়তো মুগদার কথা চিন্তার করবো এবং আরও বেশ কয়েকটি হাসপাতালকে আমরা করোনার জন্য নিয়ে আসবো।’

স্বাস্থ্য বুলেটিনের শুরুতে মন্ত্রী বলেন, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৯৫৪ জনের। তার মধ্যে করোনায় আক্রান্ত পাওয়া গেছে ৫৮। যা গতকালের তুলনায় অনেক কমেছে। আমরা মনে করি এটা একটা ভালো সংবাদ। মৃত্যুবরণ করেছে ৩ জন, সেটাও গতকালের তুলনায় কম। এটাও একটা ভালো খবর। যারা মৃত্যুবরণ করেছে তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করলো ৩০ জন।’

এ ছাড়া গত একদিনে আরও তিনজন সুস্থ হয়ে ওঠায় এ পর্যন্ত মোট ৩৬ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বুলেটিনে যুক্ত ছিলেন জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ।

বাংলাদেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর ধাপে ধাপে বাড়তে থাকে ভাইরাসটির সংক্রমণ। গত ৯ এপ্রিল ২৪ ঘণ্টায় দেশে শতাধিক করোনা সংক্রমিত রোগী শনাক্তের কথা জানায় আইইডিসিআর। এরপর দিন শনাক্তের সংখ্যা কিছুটা কমলেও বাড়ে মৃত্যুর সংখ্যা।

গতকাল শুক্রবার তারা ৯৪ জন শনাক্ত ও ছয়জনের মারা যাওয়ার কথা জানায়। আজ করোনায় মৃত্যৃ ও আক্রান্ত উভয়ই কমেছে বলে জানিয়েছে আইইডিসিআর।

advertisement
Evaly
advertisement