advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হাসপাতালের বিল দিতে নবজাতক দত্তক, ফিরিয়ে আনলেন পুলিশ কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
২ মে ২০২০ ১৪:৩৫ | আপডেট: ২ মে ২০২০ ১৪:৩৭
ছবি : সংগৃহীত
advertisement

গাজীপুর শহরের কোনাবাড়ি এলাকায় হাসপাতালের বিল শোধ করতে না পেরে নবজাতককে দত্তক দিয়েছিলেন পোশাক শ্রমিক এক দম্পতি। পরে খবর পেয়ে সেই শিশুকে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিয়েছেন এক পুলিশ কর্মকর্তা।

জানা গেছে, ওই শ্রমিক দম্পতি গাজীপুরের এনায়েতপুর এলাকায় একটি বাসায় ভাড়া থাকেন। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে কারখানা বন্ধ থাকায় তারা দুই মাস ধরে বেতন পাননি বলে পুলিশকে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে কোনাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এমদাদ হোসেন বলেন, ১৮ বছর বয়সী ওই প্রসূতিকে গত ২১ এপ্রিল কোনাবাড়ি এলাকার বেসরকারি সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি করান তার স্বামী। অস্ত্রোপচারে ওইদিনই তাদের ছেলের জন্ম হয়। সেখানে ১১ দিন থাকার পর তারা জানতে পারেন, হাসপাতালে তাদের ৪২ হাজার টাকা বিল হয়েছে।

কিন্তু দুই মাস ধরে বেতন না পাওয়ায় তাদের হাতে টাকাও ছিল না। বিষয়টি জানালে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কিছু ছাড় দিলেও ১৯ হাজার টাকা দিতে বলে। সেই টাকাও জোগাড় করতে পারেননি ওই দম্পতি, বলেন ওসি।

তিনি আরও বলেন, ‘অনেক চেষ্টা করে তারা চার হাজার টাকা জোগাড় করেছিলেন, কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাতে নারাজ ছিল। টাকা জোগাড় করতে না পেরে তারা নবজাতককে কাশিমপুরের রওশন মার্কেট এলাকার এক নিঃসন্তান দম্পতির কাছে ২৫ হাজার টাকায় দত্তক দেন।’

হাসপাতালের বিল মেটাতে বাচ্চা দত্তক দেওয়ার ওই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গাজীপুরের পুলিশ কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেনও বিষয়টি জানতে পারেন। পরে গতকাল শুক্রবার দুপুরে তিনি ২৫ হাজার টাকা পরিশোধ করে শিশুটিকে ফিরিয়ে এনে মায়ের কোলে তুলে দেন, যোগ করেন মো. এমদাদ হোসেন।

জানতে চাইলে পুলিশ কমিশনার আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আগে খবর পেলে শিশুটিকে দত্তক দিতে হতো না। হাসপাতালের বিল আমি পরিশোধ করে দিতাম। পরে দত্তক নেওয়া দম্পতিকে ২৫ হাজার টাকা পরিশোধ করে নবজাতককে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

শিশুটির লালন-পালনের জন্য ওই দম্পতিকে আরও পাঁচ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান পুলিশ কমিশনার।

advertisement
Evall
advertisement