advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ফেরি চলাচল শুরু যাত্রীদের চাপ কম

আমাদের সময় ডেস্ক
২৩ মে ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২২ মে ২০২০ ২৩:৪০
advertisement

অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্পানের দুর্যোগ কেটে যাওয়ার পর সারাদেশে আবার ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। তবে ফেরিঘাটগুলোয় যাত্রীদের চাপ খুব একটি নেই।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) চেয়ারম্যান খাজা মিয়া গতকাল জানান, ঝড়ের প্রভাব কেটে যাওয়ায় সকাল থেকে ফেরি পারাপার শুরু হয়েছে। আম্পান বাংলাদেশ উপকূলের দিকে এগিয়ে আসতে থাকায় সারাদেশে ফেরিসহ সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয় গত মঙ্গলবার দুপুরে।

বিআইডব্লিউটিসির পক্ষ থেকে সেদিন বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী, চাঁদপুর-শরীয়তপুর, লক্ষ্মীপুর-ভোলা এবং ভেদুরিয়া-লাহারহাট ঘাট দিয়ে ফেরি চলাচল করবে না। বুধবার দুপুরের পর ভারতের পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে আঘাত হেনে রাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করে আম্পান। বৃষ্টি ঝরিয়ে দুর্বল হয়ে বৃহস্পতিবার সকালের মধ্যে তা স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়।

লৌহজং প্রতিনিধি জানান, তিনদিন বন্ধ থাকার পর শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল আবার শুরু হয়েছে। ঈদ সামনে রেখে ঘরমুখো মানুষের ঢল নামায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ

ঝুঁকি এড়াতে গত ১৮ এপ্রিল বিকাল ৩টা থেকে এই নৌরুট দিয়ে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে বিরূপ আবহাওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে সব ধরনের নৌযান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আসে। ঝড়ের প্রভাব কেটে যাওয়ার পর আবার ফেরি চলাচলের অনুমতি দেয় বিআইডব্লিউটিসি। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টা থেকে আবার পারাপার শুরু হয়েছে বলে বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম জানান। তিনি আরও বলেন, ঘরমুখো মানুষে শিমুলিয়া ঘাট জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছিল। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছিল না। লোকজন গাদাগাদি করে ফেরিতে যাচ্ছিল। তাই সংক্রমণ ঠেকাতে ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। গতকাল সকাল থেকে ১২টি ফেরি দিয়ে পারাপার করা হচ্ছে বলে জানান শফিকুল।

মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সিরাজুল কবির বলেন, ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে, তবে যাত্রীর চাপ নেই। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহি প্রাইভেটকার ও কিছু ট্রাক পার করা হচ্ছে।

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। জরুরি সেবার যানবাহনসহ কিছু ব্যক্তিগত গাড়ি পাটুরিয়া নৌরুট অভিমুখে যাত্রা করতে দিচ্ছে পুলিশ। শুক্রবার সকাল থেকেই জেলা শহরের প্রবেশের মূল চেকপোস্ট অতিক্রম করে ওই সব যানবাহন পাটুরিয়া ঘাটের দিকে যাচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসি পাটুরিয়া সেক্টরের বাণিজ্য বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক মহিউদ্দিন রাসেল বলেন, দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলগামী পণ্যবোঝাই ট্রাক, অ্যাম্বুলেন্স, লাশবাহী গাড়িসহ কিছু ছোট ব্যক্তিগত গাড়ি পার করা হচ্ছে। পাটুরিয়া অংশে শতাধিক পণ্যবোঝাই ট্রাক পারের অপেক্ষায় রয়েছে এবং ছোট গাড়ি ৫ নম্বর পণ্টুন দিয়ে সরাসরি পার হচ্ছে। বর্তমানে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৫টি ফেরির মধ্যে ৬টি পারাপারের কাজে নিয়োজিত আছে বলেও জানান তিনি।

মানিকগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. হাফিজুর রহমান বলেন, আমাদের মানিকগঞ্জের প্রবেশদ্বার গোলড়াতে যে চেকপোস্ট রয়েছে সেখান থেকে জরুরি সেবায় নিয়োজিত গাড়ি ও ব্যক্তিগত গাড়ি পাটুরিয়া ঘাটের দিকে কিছু কিছু প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া যাত্রী পরিবহনের সঙ্গে সম্পৃক্ত কোনো গণপরিবহন প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

advertisement
Evall
advertisement