advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বরিশালে গর্ভের সন্তানসহ প্রসূতির মৃত্যু, আটক ২

বরিশাল ও গৌরনদী প্রতিনিধি
২৩ মে ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২২ মে ২০২০ ২৩:৪৩
advertisement

গৌরনদী উপজেলার আনোয়ারা ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুল চিকিৎসায় আফরোজা আক্তার মুন্নী (২৩) নামের এক প্রসূতি ও তার গর্ভজাত সন্তানের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশ ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে। একইসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ক্লিনিকের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট অজয় হালদার ও অপারেশন থিয়েটারের সহযোগী রিপন মিস্ত্রিকে আটক করেছে। তবে ঘটনার পরপরই ক্লিনিক থেকে পালিয়ে যান কথিত চিকিৎসক ও আনোয়ারা ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক হেদায়েত উল্লাহ। মৃত প্রসূতি উজিরপুর উপজেলার শোলক ইউনিয়নের দত্তেস্বর গ্রামের কুদ্দুস তালুকদারের স্ত্রী।

স্বজনদের অভিযোগ, প্রসব বেদনা শুরু হওয়ার পর অপারেশনের জন্য আফরোজা আক্তার মুন্নীকে বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। বিকালে অপারেশনের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক চিকিৎসককে সার্জন হিসেবে উপস্থিত করে হেদায়েত উল্লাহ ওই প্রসূতিকে ভুল অ্যানেসথেসিয়া পুশ করেন। এর পরপরই তার মৃত্যু হয়।

তাৎক্ষণিক বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ রোগীর অবস্থা খারাপ বলে শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর জন্য অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে আসে। এ দিকে অপারেশন থিয়েটারে প্রসূতির মৃত্যু বিষয়টি জানতে পেরে সন্ধ্যায় ওইদিন স্বজনরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। তার আগেই হেদায়েত উল্লাহসহ অন্য চিকিৎসক কৌশলে ক্লিনিক থেকে পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে গৌরনদী মডেল থানা পুলিশ গিয়ে আফরোজা আক্তার মুন্নীর লাশ উদ্ধার করে। এ সময় ক্লিনিকের দুই স্টাফকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়।

গৌরনদী মডেল থানার ওসি মো. গোলাম ছরোয়ার জানান, এ ঘটনায় মৃত গৃহবধূর স্বামী কুদ্দুস তালুকদার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। ইতিমধ্যে দুজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান ওসি।

advertisement
Evall
advertisement