advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নামাজে  উচ্চস্বরে ‘আমিন’ বলায় হামলা, আহত ৩

মতলব দক্ষিণ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি
২৯ মে ২০২০ ২১:১৫ | আপডেট: ৩০ মে ২০২০ ০০:১৫
advertisement

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার উপাদী উত্তর ইউনিয়নের মধ্য ডিংগা ভাঙ্গা গ্রামের মদিনা জামে মসজিদে নামাজে উচ্চস্বরে ‘আমিন’ বলায় শাহাদাত নামের এক মুসল্লিকে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। আজ শুক্রবার জুমার নামাজের আগে এ ঘটনা ঘটে।

ওই ঘটনায় সাকিল (১৭) ও ফাতেমা আক্তার (৩২) নামের দুজন আহত হয়েছেন। তারা বর্তমানে মতলব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার আইচ জানান, এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

জানা গেছে, মুসল্লিদের নামাজে উচ্চস্বরে ‘আমিন’ বলা থেকে বিরত থাকতে বলেন মদিনা জামে মসজিদের ক্যাশিয়ার রুহুল আমিন বকাউল। বিষয়টি নিয়ে মসজিদের মুসুল্লিদের পক্ষে বিপক্ষে তর্কবিতর্ক হয়। এ সময় ইমামের পক্ষ নিয়ে মুসল্লি শাহাদাত হোসেন নামাজ শেষ হলে দলিল দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা বলেন। এতে উত্তেজিত ক্যাশিয়ার রুহুল আমিন ও তার লোকজন শাহাদাতকে মারধর করেন। আত্মরক্ষার্থে তিনি নিজ বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেন। কিন্তু সেখানে গিয়েও রুহুল আমিন ও তার দলবল শাহাদাতকে মারধর করেন। এ সময় তাকে বাঁচাতে আসায় তার বোন ফাতেমা ও ভাতিজা সাকিলকে মারধর করেন রুহুল আমিন ও তার দলবল। পরে তাদের আহত অবস্থায় উদ্ধার করে মতলব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালে ভর্তি শাহাদাত আমাদের সময়কে বলেন, ‘অযথাই তারা আমাকে আর আমার স্বজনদের মারধর করেছেন। আমি এর বিচার চাই।’

মদিনা জামে মসজিদের ক্যাশিয়ার রুহুল আমিন বকাউল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমার সাথে ইমামের এ বিষয়ে কথা হচ্ছিল। ওর (শাহাদাত) মাঝখানে কথা বলার কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে।’

মসজিদে চাকরি করেন বিধায় এ বিষয়ে কিছু বলবেন না বলে জানিয়েছেন ইমাম।

advertisement