advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

১২ মামলার শীর্ষ সন্ত্রাসীর পা কেটে নেওয়ায় এলাকায় স্বস্তি

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি
৩১ মে ২০২০ ১৩:০১ | আপডেট: ৩১ মে ২০২০ ১৩:১৫
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শীর্ষ সন্ত্রাসী মিঠু কানা, ইনসেটে পুরোনো ছবি
advertisement

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় হত্যা, মাদক, ছিনতাইসহ ১২ মামলার আসামি মিঠু মন্ডল (২৭) ওরফে মিঠু কানার বাম পা কেটে নিয়েছে তার ফুপাত ভাই বাবু মন্ডল। এদিকে, পা কেটে ফেলার ঘটনায় স্বস্তি প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী।

গতকাল শনিবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার খুবজীপুর উত্তরপাড়া মিঠুর বাড়ির অদূরেই এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মিঠুর বাবা সাইদুল মন্ডল ওই রাতেই বাদী হয়ে বাবু মন্ডলসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ জানায়, শীর্ষ সন্ত্রাসী মিঠুকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সন্ত্রাসী মিঠু কানার সঙ্গে ফুফাত ভাই বাবু মন্ডলের পারিবারিক বিরোধ চলে আসছিল। এ ঘটনার জের ধরে গতকাল শনিবার রাতে খুবজীপুর বাজারে যাওয়ার পথে বাবু মন্ডল ও তার সহযোগীরা মিঠু মন্ডলের ওপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মিঠু মন্ডলের বাম পা কেটে বিচ্ছিন্ন করে দেয় বাবু মন্ডল ও তার সহেযাগী রকি, শফি ও আরিফ। এ সময় মিঠু মন্ডলের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। অভিযুক্ত বাবু মন্ডল যোগেন্দ্রনগর গ্রামের জালাল মন্ডলের ছেলে।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাহারুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে বাবু মন্ডল ও তার সহযোগীরা পলাতক রয়েছে। আহত মিঠু একজন সন্ত্রাসী ও ছিনতাইকারী। তার বিরুদ্ধে ১২টি মামলা রয়েছে। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’ 

advertisement