advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মরে পড়েছিলেন যক্ষা ও কুষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি
৩১ মে ২০২০ ১৪:৪২ | আপডেট: ৩১ মে ২০২০ ১৪:৫৭
মরে বাথরুমে পড়েছিলেন তাড়াশ উপজেলা হাসপাতালের যক্ষা ও কুষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের যক্ষা ও কুষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ কার্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তা (টিএলসি) রফিকুল ইসলাম (৪৭) সরকারি ডরমেটরিতে মরে পড়েছিলেন। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করেছে তাড়াশ থানা পুলিশ।

রফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি নীলফামারী সদরের জলঢাকা মহল্লায়। এ ছাড়া রংপুর সদরের রামবল্লপুর এলাকায়ও তার আরেকটি বাড়ি রয়েছে।

জানা গেছে, আজ রোববার সকালে তাড়াশ উপজেলার পরিষদের সরকারি ডরমেটরিতে গৃহ পরিচারিকা মছিরন বিবি কাজ করতে গিয়ে রফিকুল ইসলামের রুমের দরজায় কড়া নাড়লেও সাড়া শব্দ না পেয়ে সরকারি কোয়ার্টারে থাকা প্রতিবেশীদের খবর দেন। পরে প্রতিবেশী তাড়াশ উপজেলা কমপ্লেক্স জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন আবুল কালাম এসে ওই কর্মকর্তাকে ডাকাডাকি করেন।

একপর্যায়ে ভেতর থেকে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে আবুল কালাম মই দিয়ে ছাঁদে উঠে সিড়ি বেয়ে নেমে গেট খুলে দেন। এ সময় লোকজন ভেতরে প্রবেশ করে দেখেন রফিকুল ইসলাম বাথরুমের মধ্যে মরে পড়ে আছেন। এ খবর তাড়াশ থানা পুলিশকে দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল এসে তার লাশ উদ্ধার করে।

তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুল আলম আজ রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জানান, মৃত রফিকুল ইসলামের অভিভাবকরা আসার পর তার লাশ ময়নাতদন্ত হবে কিনা সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সিরাজগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘টিএলসি রফিকুল ইসলামের মৃত্যুর বিষয়টি জেনেছি। মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশকে বলেছি।’

advertisement