advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মানুষের হাত শূন্য এখন ভাড়া বৃদ্ধি অযৌক্তিক

গোলাম রহমান সভাপতি, ক্যাব

নিজস্ব প্রতিবেদক
১ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১ জুন ২০২০ ০০:৩০
advertisement

করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন নি¤œআয়ের মানুষের হাত শূন্য। তারাই গণপরিবহনের মূল যাত্রী। এ পরিস্থিতিতে গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি কোনোভাবেই যৌক্তিক নয় বলে মনে করেন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান। গতকাল রবিবার দুর্নীতি দমন কমিশনের সাবেক এ চেয়ারম্যান আমাদের সময়কে বলেন, গণপরিবহনে নি¤œআয়ের মানুষরাই চড়ে। এ মানুষদের প্রায় তিন মাস ধরে আয়-রোজগার নেই। তারা শূন্য

হাতে নতুন করে জীবিকার সন্ধানে ছুটছে। এ অবস্থায় ভাড়া বাড়ানো কোনোভাবেই যৌক্তিক হতে পারে না। বাসের ভাড়া বাড়ানোয় মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে, দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, কোন বিবেচনায় সরকার ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়াল বোধগম্য নয়। সরকার বিভিন্ন খাতে হাজার হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিচ্ছে। গণপরিবহন একটি ভর্তুকি খাত হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু উল্টো নি¤œআয়ের খেটেখাওয়া মানুষদের ওপর ভাড়া চাপিয়ে দিল। ফলে অর্থনীতিতে আরেকটি নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

তিনি বলেন, বিশ্বে এখন জ্বালানি তেলের দাম প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। দেশের বাজারে যে দাম, তা অনেক আগে ঠিক করা। আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে দাম পুনর্নির্ধারণ করা প্রয়োজন। এতে আমদানিকারক সরকারি সংস্থাগুলোর লাভ কম হলেও দাম কমিয়ে পরিবহন খাতের ক্ষতি পুষিয়ে দেওয়া সম্ভব।

তিনি বলেন, পৃথিবীর সব দেশেই গণপরিবহন ভর্তুকিপূর্ণ খাত। কেবল আমাদের দেশেই উল্টো। সময় সময় ভাড়া বাড়ানো হয়। কিন্তু ভাড়া কমার নজির নেই বললেই চলে। তিনি আরও বরেন, কোনো রুটে গণপরিবহনের মালিকরা বাস চালাতে অস্বীকৃতি জানালে বিআরটিসির মাধ্যমে বাস চালানোর ব্যবস্থা নিতে হবে।

advertisement