advertisement
advertisement

গর্ভবতী নারীর শ্লীলতাহানি, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট গ্রেপ্তার

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি
১ জুন ২০২০ ১৬:৫৮ | আপডেট: ১ জুন ২০২০ ১৯:০৫
গ্রেপ্তার গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কাজী আবু বক্কার সিদ্দিক। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

নাটোরের গুরুদাসপুরে এক গৃহবধূকে (২৫) গর্ভকালীন টিকা দেওয়ার সময় শ্লীলতাহানি করার অপরাধে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কাজী আবু বক্কার সিদ্দিককে (৪৬) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে নাটোর জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ভুক্তভোগী নারীর দায়ের করা মামলার পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রোববার রাত ৮টার দিকে নাটোর থেকে আবু বক্কার সিদ্দিককে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি জেলা সদরের বাসিন্দা আব্দুল করিমের ছেলে।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই গৃহবধূর শ্লীলতাহানির ঘটনায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হাসপাতালের একটি কক্ষে ওই টেকনোলজিস্টকে তালা দিয়ে রাখা হয়।

পরে তাকে একজন জনপ্রতিনিধির জিম্মায় দেওয়া হয় এবং ভুক্তভোগী গৃহবধূর অভিযোগের ভিত্তিতে টেকনোলজিস্ট আবু বক্কার সিদ্দিকের বিরুদ্ধে গঠন করা হয় তদন্ত কমিটি।

শ্লীলতাহানির শিকার গৃহবধূ অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বামীর সঙ্গে গুরুদাসপুর হাসপাতালে গর্ভকালীন টিকা নিতে আসেন তিনি। পরে তার স্বামীকে ওই টেকনোলজিস্ট রুম থেকে কৌশলে বের করে দেন। টিকা দেওয়ার নামে তার শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন টেকনোলজিস্ট বক্কার। এ সময় তাকে কুপ্রস্তাবও দেওয়া হয়। একপর্যায়ে তিনি চিকিৎসা না নিয়ে কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে আসেন। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে তার স্বামী থানায় মামলা দায়ের করেন।

হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, আবু বক্কার সিদ্দিক প্রায় তিন বছর আগে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পদে যোগদান করেন। বিভিন্ন সময়ে তার বিরুদ্ধে নারী কেলঙ্কারিসহ নানা অভিযোগ ওঠে। এক নারী মেডিকেল অফিসারকেও যৌন হয়রানি করেছেন তিনি। সেই বিষয়টি নিয়েও চলছে তদন্ত। তদন্ত শেষ হলেই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানো হবে।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাহারুল ইসলাম বলেন, শ্লীলতাহানির বিষয়ে ভুক্তভোগী ওই নারীর স্বামী থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট আবু বক্কারকে গ্রেপ্তার করেছে। সোমবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে নাটোর জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

advertisement