advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মেয়েকে উত্ত্যক্ত, রাগে কেটে ফেললেন ভগ্নিপতির লিঙ্গ

পিরোজপুর প্রতিনিধি
১ জুন ২০২০ ১৮:২২ | আপডেট: ১ জুন ২০২০ ২০:৫০
প্রতীকী ছবি
advertisement

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলায় মেয়েকে উত্ত্যক্ত করায় লিটন হোসেন নামে এক ব্যক্তির লিঙ্গ কেটে ফেলেছেন স্ত্রীর বড় ভাই। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় লিটন বরিশালের শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গত শনিবার উপজেলার কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়নের মুগারঝোর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরদিন গতকাল রোববার রাতে লিটনের বাবা বাদী হয়ে ছেলের সম্বন্ধী মামুন ডাকুয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। এ দিন রাতেই মো. মামুন ডাকুয়াকে (৪৫) গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুনিরুল ইসলাম মুনির।

মামুন ডাকুয়া ওই গ্রামের মো. মালেক ডাকুয়ার ছেলে। আর বোনের স্বামী লিটন হোসেন জেলার নেছারাবাদ উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নের আদর্শ বয়া গ্রামের মো. সৈয়দ বাহদুরের ছেলে। তিনি পেশায় একজন টেম্পু চালক।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বোনজামাই লিটন হোসেন গত শুক্রবার তার সম্বন্ধীর বাড়িতে স্ত্রীকে নিয়ে বেড়াতে যান। গত শনিবার রাতে তিনি মামুনের ঘরে স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন। এমন সময় রাত আড়াইটার দিকে শ্যালক মামুন ডাকুয়া তার ঘরে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার লিটনের লিঙ্গ কেটে ফেলেন।

লিটনের স্ত্রী সুখি বেগমের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি দাবি করেন, তার স্বামী কোনো অপরাধ করেননি। তার বড়ভাই মামুন ষড়যন্ত্র করে এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন। তার ভাইয়ের মেয়ের সঙ্গে তার স্বামীর অনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে এমন সন্দেহে তার ভাই এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

গ্রেপ্তারের আগে মামুন ডাকুয়া জানান, স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়াশুনা করে তার মেয়ে। গত এক বছর ধরে ভগ্নিপতি লিটন তার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। বিষয়টি তার বোনকে জানানো হয় এবং ভগ্নিপতিকে একাধিকবার সাবধান করা হয়। তারপরও সাবধান না হওয়ায় তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

advertisement