advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আইপিএলে আপত্তি নেই স্মিথের

ক্রীড়া ডেস্ক
২ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১ জুন ২০২০ ২৩:৫৩
advertisement

করোনা ভাইরাসের কারণে বন্ধ সব ধরনের ক্রিকেট; তবে ক্রিকেট বিশ্বের মূল আলোচনার বিষয়বস্তু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নাকি আইপিএল। এ বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ টুর্নামেন্ট, তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে এখনো অনিশ্চিয়তা সেটি সেটি মাঠে গড়ানো নিয়ে। জোর গুঞ্জন শেষ পর্যন্ত স্থগিতই হতে যাচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। আলোচনা আছে, সেই সময়টায় অনুষ্ঠিত হবে স্থগিত হয়ে যাওয়া আইপিএলের আসর।

এ আলোচনায় সব শেষ যোগ দিলেন অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান স্টিভেন স্মিথ। তিনিও চান আইপিএল খেলতে, তবে বিশ্বকাপের আগে নয়। যদি কোনো কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পিছিয়ে দেওয়া হয়, তা হলে আইপিএল খেলতে চান স্মিথ। আইপিএলের ২০২০ সালের আসরে রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে খেলার কথা রয়েছে স্মিথের। এরই মধ্যে দলের অধিনায়কত্বও ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে তাকে। বিশ্বব্যাপী আইপিএলের যে উন্মাদনা সেটি জানেন স্মিথও। তাই বিশ্বকাপ স্থগিত হলে আইপিএল খেলতে আপত্তি নেই তার।

অস্ট্রেলিয়ান সংবাদ মাধ্যমে স্মিথ বলেছেন, ‘আমি মনে করি, আপনি যখন দেশের হয়ে বিশ্বকাপ খেলতে নেমেছেন, সেটাই সর্বোচ্চ চূড়াÑ হোক ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টি। তাই অবশ্যই আমি আগে বিশ্বকাপ খেলার কথাই বলব। তবে যদি বিশ্বকাপ না হয় এবং তার বদলে আইপিএল হয়, তা হলে তা-ই হোক।’

‘ঘরোয়া ক্রিকেটের মধ্যে আইপিএলের বিষয়টাই অন্যরকম। যেহেতু সব কিছুই এ মুহূর্তে আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। খেলোয়াড়দের যেভাবে নির্দেশনা দেওয়া আছে, তারা সেগুলো অনুসরণ করছে। এই অবস্থায় আমাদের যেখানে খেলতে দেওয়া হবে, সেখানেই খেলতে রাজি।’ স্মিথের আশা, খুব শিগগির এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত চলে আসবে। আইসিসির সবশেষ অনলাইন সভায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ১০ জুনের কথা বলা হয়েছে। সেখান থেকে আসা সিদ্ধান্তের ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে বলে মনে করেন স্মিথ। তিনি বলেন, ‘এই অচলাবস্থার ব্যাপারে দ্রুতই সিদ্ধান্ত চলে আসবে আশা করি। তখনই আমরা সবাই জানতে পারব, কী হচ্ছে বা কী হবে, কীভাবে হবে। আমি ব্যক্তিগতভাবে এটি নিয়ে খুব বেশি ভাবিনি। আমি মনে করি সরকার এবং যথাযথ কর্তৃপক্ষ যা ভালো মনে করবে, তেমন সিদ্ধান্তই হবে। এটা (বিশ্বকাপ) হলে তো বেশ, না হলেও কিছু করার নেই। কারণ সারাবিশ্বে যে ভয়াবহ অবস্থা এখন, সে তুলনায় ক্রিকেট কিছুই নয় আসলে। তাই আমাদের যখনই বলা হবে, তখন মাঠে ফিরব। তার আগ পর্যন্ত এখন শক্ত করে বসুন, ফিট থাকুন এবং মানসিকভাবে চাঙা থাকুন।’

advertisement