advertisement
advertisement

অনুশীলনে ফিরছেন টাইগাররা

ক্রীড়া প্রতিবেদক
৬ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৫ জুন ২০২০ ২২:৩০
advertisement

মুশফিক, তামিমদের অনুশীলনে নামার সুযোগ করে দেওয়ার কথা ভাবছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। অবশ্য এ বিষয়ে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাননি বোর্ড কর্তারা। জানা গেছে, আগামী সপ্তাহের শুরুতে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগতভাবে অনুশীলন করার অনুমতি দেওয়া হতে পারে। মুশফিকদের ইচ্ছেপূরণ করতেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ভাবছে বিসিবি।

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ এখনো কমেনি। আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। এমন সময় ক্রিকেটারদের মাঠে গিয়ে অনুশীলন করা কতটা জরুরি সে প্রশ্ন উঠে গেছে! তবে মাঠে গিয়ে অনুশীলন করতে বেশি ব্যতিব্যস্ত হয়ে পরেছেন মুশফিকুর রহিম। বিসিবি প্রথম দিকে ‘আপত্তি’ করলেও এখন সুর পাল্টেছে। যেহেতু পরিস্থিতি কবে নাগাদ স্বাভাবিক হবে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না, তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুশীলন শুরুর পাশাপাশি ক্রিকেট মাঠে ফেরানোর বিষয়টি নিয়েও ভাবতে হচ্ছে বিসিবিকে।

করোনা ভাইরাস উত্তর ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশে এখনো ক্রিকেট চর্চার শুরু না হলেও শ্রীলংকা বসে নেই। তারা ১৩ জন ক্রিকেটার নিয়ে অনুশীলনে ফেরার পথে হাঁটছে। ঈদের পর সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক অফিস খোলার পর বিসিবি ‘ধীরে চলে নীতি’ অবলম্বন করার কথা জানিয়েছিল। তবে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির উন্নতি না হলেও দেশের ক্রিকেট বোর্ড এখন মাঠে ক্রিকেট ফেরানোর কথা ভাবছে। এককভাবে অনুশীলনের অনুমতি দেওয়া হলে তা হবে ক্রিকেট ফেরানোর প্রথম ধাপ! ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান জানিয়েছেন, ‘ঢাকা, চট্টগ্রামসহ কয়েকটি মাঠে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত পর্যায়ের অনুশীলনের সুযোগ করে দেওয়ার কথা ভাবছে বোর্ড।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘আমরা শুধু তাদের অনুশীলন করার ব্যবস্থা করে দেব। সেজন্য যা যা দরকার, তাও ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে। এর বাইরে অন্য কিছু নয়।’

খেলোয়াড়রাও মাঠে ফিরতে মুখিয়ে আছেন। একাধিক ক্রিকেটারের সঙ্গে মুঠোফোনে এ বিষয়ে কথা হয়েছে। প্রত্যেকেই বলেছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যদি খেলা শুরু করা হয় তা হলে তারা প্রস্তুত। মুশফিক তো ঈদের আগেই একা অনুশীলন করতে বিসিবির কাছে অনুমতি চেয়েছিল। ক্রিকেটারদের ইচ্ছেপূরণ করতেই মূলত এককভাবে অনুশীলনের ব্যবস্থা করে দিতে চায় বিসিবি।

টাইগারদের মাঠে ফেরানোর প্রস্তুতির অংশ হিসেবে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান। ক্রিকেটারদের একক অনুশীলন দিয়ে ক্রিকেটীয় কার্যক্রম শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে বিসিবির। সে ক্ষেত্রে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়াম, বিসিবি একাডেমি মাঠ, জিমনেসিয়ামে একই সময়ে তিনজন করে খেলোয়াড় অনুশীলন করতে পারবে। অবস্থা বুঝে সে সংখ্যাটা বাড়ানো হবে। বিসিবি এখন মাঠকর্মী, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, টিম বয় কিংবা মাঠে খেলোয়াড়দের কাছাকাছি আসেন, এমন কর্মীদের আলাদা করে ফেলতে চাইছে। তাদের করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করানো হবে। তবে ক্রিকেটারদের করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করানো হবে কিনা সে বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত নেওয়া হবে। প্রিমিয়ার লিগ দিয়ে দেশের ক্রিকেট শুরু করার ভাবনা বিসিবির। শ্রীলংকা কিংবা নিউজিল্যান্ড সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে পারে বাংলাদেশ। অবশ্য এখনই কোনো কিছু নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। যতটুকু জানা গেছে তাতে শ্রীলংকা সফর হবে কিনা তা এখনো পরিষ্কার নয়। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হতে এখনো দুই সপ্তাহের মতো সময় লাগতে পারে। বিসিবির তরফ থেকে জানানো হয়েছে পরিস্থিতি ভালো হলেই কেবল শ্রীলংকা সফর সম্ভব।

বিসিবির মেডিক্যাল বিভাগ একটা গাইডলাইন তৈরি করেছে। তিনভাবে অনুশীলন শুরু করতে পারেন ক্রিকেটাররা। প্রথমটি হলো সোলো ট্রেনিং অর্থাৎ ওয়ান টু ওয়ান ট্রেনিং। দ্বিতীয়টি হলো- এক সঙ্গে তিন মাঠে তিন ক্রিকেটারের অনুশীলন। মিরপুরে বিসিবির মূল মাঠ, একাডেমি মাঠ ও ইনডোর মাঠে তিনজন আলাদাভাবে অনুশীলন করতে পারেন। তিন মাঠেই বিসিবির লোক থাকবে। মাঠের সংখ্যা বাড়ালে ক্রিকেটারের সংখ্যাও বাড়ানো যাবে। তিনজন করে হলে প্রতিদিন ১৫ জন ক্রিকেটারকে ট্রেনিং করানো যাবে। একজনের পর তিনজন, তিনজনের জায়গায় ৬ জন, ১০ জন, এর পর পুরো টিম।

অবশ্য বিসিবি এখন শুধু ক্রিকেটারদের ইচ্ছেপূরণ করতেই ব্যক্তিগতভাবে অনুশীলনের অনুমতি দেওয়ার কথা ভাবছে। তারা এখনো পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। নিজাম উদ্দিন চৌধুরী জানিয়েছেন, দ্রুত মাঠে খেলা ফেরানোর পরিকল্পনায় রয়েছে বিসিবি। এ জন্য কাজও শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, ‘অনেক কিছুর ওপর নির্ভরশীল শ্রীলংকা সফর নিয়ে যদিও এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি, তবে আমরা চাই খেলোয়াড়রা প্রস্তুত থাকুক এবং তাদের স্বাভাবিক কার্যকলাপ শুরু করুক। বর্তমানে খেলোয়াড় এবং কোচিং স্টাফরা অনলাইনের মাধ্যমে যোগাযোগ করছে এবং কীভাবে পুনরায় ক্রিকেট শুরু করা যায় সেই পরিকল্পনা করছে।’

advertisement