advertisement
advertisement

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
৬ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৬ জুন ২০২০ ০০:০০
advertisement

বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু হানিফ প্রামাণিক ওরফে মিস্টারকে (৩৮) প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। পুলিশের ভাষ্যমতে, তিনি তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ছিলেন। তার নামে চার হত্যাকা-সহ নয়টি মামলা বিচারাধীন।

বগুড়া শহরতলির শাকপালা মোড়ে স্থানীয় মসজিদের গেটে গতকাল শুক্রবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে তাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। নিহত মিস্টার শাকপালা গ্রামের আরমান হোসেন ওরফে আরমান ড্রাইভারের ছেলে।

এলাকাবাসী জানায়, মিস্টার পৌনে ১২টার দিকে শাকপালা বাসস্ট্যান্ড

বায়তুস সালাম জামে মসজিদে নামাজ আদায়ের জন্য যাচ্ছিলেন। মসজিদের গেটের কাছে পৌঁছার পরপরই পেছন থেকে আসা একদল যুবক কাঠ ফাঁড়াই করা কুড়াল দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মোটরসাইকেলে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকা-ে জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপরতা শুরু করেছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই মিস্টার প্রকাশ্যে আসত না। তার নামে চারটি হত্যাকা- ছাড়াও চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকা-ে জড়িত থাকার অভিযোগে নয়টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মসজিদের পশ্চিম পাশে কয়েকজন যুবক মোটরসাইকেলে আগে থেকেই অপেক্ষা করছিল। মিস্টার মসজিদে প্রবেশ করার আগমুহূর্তে কয়েক যুবক তাকে কুপিয়ে কুড়াল ফেলে মোটরসাইকেলে উঠে পালিয়ে যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, মিস্টার ছিলেন এলাকার ত্রাস। চাঁদাবাজি, ছিনতাই, হত্যা ও জমি দখল ছিল তার পেশা। একাধিকবার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেও জামিনে মুক্ত হয়ে আবারও সন্ত্রাসী কর্মকা-ে জড়িয়ে পড়তেন। তার ভয়ে এলাকার কেউ মুখ খোলার সাহস পেত না। বছরখানেক আগে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটিতে তাকে সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ দেওয়া হয়।

বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের দপ্তর সম্পাদক মশিউর রহমান জানান, মিস্টার বিগত পৌরসভা নির্বাচনে ১৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন। আগামী নির্বাচনেও অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

শাহজাহানপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রাজ্জাক জানান, বগুড়া-নাটোর মহাসড়ক সম্প্রসারণের কাজ চলছে। সেখানে মিস্টার বালু সরবরাহের কাজ পান। এই কাজ পাওয়া না পাওয়া নিয়ে প্রতিপক্ষের সঙ্গে তার বিরোধের সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে এ হত্যাকা- ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

advertisement