advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

করোনাপরবর্তী খাদ্যনিরাপত্তা ও পুষ্টি ভাবনা

ড. মো. মনিরুল ইসলাম
১৯ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৯ জুন ২০২০ ০৮:৫৬
প্রতীকী ছবি
advertisement

বাংলাদেশ কৃষিনির্ভর দেশ। সামগ্রিক অর্থনীতিতে কৃষির উপখাতগুলো যথা শস্য বা ফসল উপখাত, প্রাণিসম্পদ উপখাত, মৎস্যসম্পদ উপখাত ও বনসম্পদ উপখাত প্রত্যেকটিরই খাদ্য ও পুষ্টিনিরাপত্তার জন্য গুরুত্ব অপরিসীম। সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ, কৃষি বিজ্ঞানীদের নব নব প্রযুক্তি উদ্ভাবন, কৃষকের ঘাম ঝরানো পরিশ্রম ও বেসরকারি খাতের কৃষিতে বিনিয়োগ সামগ্রিক কৃষির সফলতার অন্যতম কারণ। বাংলাদেশ এখন দানাদার খাদ্যশস্য উৎপাদনে স্বয়ংবর।

তা ছাড়া ইতোমধ্যে ধান উৎপাদনে এক ধাপ এগিয়ে বিশ্বে তৃতীয় উৎপাদনকারী দেশ হিসেবে স্থান করে নিয়েছে। তবে নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ, খরা-বন্যা, অতিবৃষ্টি-অনাবৃষ্টি, ঝড়-জলোচ্ছ্বাস কৃষি উৎপাদনে বড় অন্তরায়। উপরন্তু এ বছর বিশ্বব্যাপী করোনার আঘাত দেশের কৃষির জন্য অশনিসংকেত হয়ে দাঁড়িয়েছে। সামনের চ্যালেঞ্জ হলো নির্বিঘ্ন খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহ নিশ্চিতকরণ, পণ্যের ন্যায্যমূল্য ও পাশাপাশি সবার জন্য পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিতকরণ। কোভিড-১৯ বা করোনার কারণে লকডাউন ঘোষণা করায় খাদ্য উৎপাদনে ব্যাঘাত না ঘটলেও পরিবহন সমস্যা ও ক্রেতার অভাবে উৎপাদিত পণ্য, বিশেষ করে পোলট্রি, দুধ, ফল-শাকসবজি প্রতিটি পণ্য পরিবহনের জটিলতায় বাজারজাতকরণ সমস্যা, ক্রেতাশূন্য বাজারে পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্য হ্রাসের কারণে উৎপাদিত ফসল কৃষকের গলায় ফাঁস হয়ে দাঁড়িয়েছে।

যদিও সরকারের তাৎক্ষণিক বিভিন্ন পদক্ষেপ, বিশেষ করে কৃষি খাতে প্রণোদনা ও সুযোগ্য কৃষিমন্ত্রীর সার্বক্ষণিক মাঠপর্যায়ে তদারকি ও সমস্যা চিহ্নিতকরণের মাধ্যমে এসব সমস্যা সমাধানে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে সমস্যা অনেকটাই কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে। বোরো ধানের বাম্পার ফলন, সঠিক সময়ে ধান কাটা সম্পন্ন করার ফলে খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা অনেকটাই সামাল দেওয়া গেছে। কিন্তু তার বিপরীতে হঠাৎ করে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় অর্থকরী মৌসুমি ফল আম ও লিচুর ব্যাপক ক্ষতি (ক্ষেত্রবিশেষে ১০-৭০ শতাংশ) হয়ে গেল। ফলে এতে এককভাবে চাষিরাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তা নয়, এ ধরনের ক্ষয়ক্ষতির ফলে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতির ওপর বিরাট চাপ সৃষ্টি হয়েছে। তাই করোনাপরবর্তী সময়ে খাদ্য ও পুষ্টিনিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ সরকারের অগ্রাধিকার এজেন্ডা ও চ্যালেঞ্জ।

জীবনধারণের জন্য যেমন খাদ্য অত্যাবশ্যক। আবার সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য নিরাপদ, পুষ্টিমান সম্পন্ন ও সুষম খাবার গ্রহণ প্রয়োজন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু এ বিষয়টি বেশ ভালোভাবেই উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। তিনি অনুধাবন করতে পেরেছিলেন পুষ্টিহীন জাতি মেধাশূন্য, আর মেধাশূন্য জাতি যে কোনো দেশের জন্য বিরাট বোঝা। তাই ১৯৭৩ সালে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি মানুষের পুষ্টিমান উন্নয়নে ইধহমষধফবংয ঘধঃরড়হধষ ঘঁঃৎরঃরড়হ ঈড়ঁহপরষ (ইঘঘঈ) গঠন করেছিলেন। মাঝপথে এর কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেলেও মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি সরকার গঠন করার পর প্রধানমন্ত্রী তা আবার পুনরুজ্জীবিত করেন।

আমরা সবাই জানি, খাদ্যের প্রয়োজনীতা অনুযায়ী বিভিন্ন খাদ্যকে সাধারণত তিন শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছেÑ ১. শক্তিদায়ক খাবার, যেমন শর্করা বা কর্বোহাইড্রেট, যা আমরা ভাত, গম, ভুট্টা, আলু ইত্যাদি থেকে পাই; ২. শরীর বৃদ্ধিকারক ও ক্ষয়পূরক খাবার, যেমন প্রোটিন বা আমিষ, যা আমরা ছোট মাছ, বড় মাছ, মাংস, দুধ ইত্যাদি থেকে পাই ও ৩. রোগ প্রতিরোধকারী খাবার, যেমন ভিটামিনস ও মিনারেলস, যা আমরা একমাত্র শাকসবজি ও ফলমূল থেকে পেয়ে থাকি (চিত্র ১)। সে পরিপ্রেক্ষিতে সমাজের সবস্তরের মানুষের মাঝে পুষ্টিকর ও সুষম খাবার গ্রহণে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে পুষ্টি ইউনিট, বংালাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল ‘ফুড প্লেট’ (চিত্র ১) তৈরি করেছে, যা অব্যাহতভাবে প্রশিক্ষণ ও কর্মশালার মাধ্যমে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থা (এফএও) ও ডায়েটারি গাইডলাইনস অব বাংলাদেশের সুপারিশ অনুযায়ী একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক ১০০ গ্রাম শাক, ২০০ গ্রাম অন্যান্য সবজি ও ১০০ গ্রাম ফল খাওয়া প্রয়োজন। অথচ এখনো গড়ে দেশের মানুষ প্রতিদিন মাত্র ১২৫ গ্রাম সবজি ও প্রায় ৮০ গ্রাম ফল খেয়ে থাকে (এফএও স্ট্যাট, ২০১২)। অথচ কর্মক্ষম ও সুস্থভাবে বাঁচার জন্য ফল ও সবজি প্রাত্যহিক খাবার তালিকায় অপরিহার্য। কেননা ফল ও শাকসবজিতে প্রচুর পরিমাণে পানি, অত্যাবশকীয় ভিটামিন, মিনারেল, ডায়েটারি ফাইবার, ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ও কিছু পরিমাণ শর্করা বিদ্যমান।

তা ছাড়া প্রতিদিন পরিমাণমতো শাকসবজিও ফল খাওয়ার ফলে বিভিন্ন প্রাণঘাতী রোগ যেমন-ক্যানসার, হার্ট ডিজিস, টাইপ-২ ডায়াবেটিস, স্ট্রোকসহ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগের প্রাদুর্ভাব কমায়। শাকসবজি থেকে প্রাপ্ত ভিটামিন ও মিনারেল দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা (ইমিউনিটি) বৃদ্ধি করে, ফলে পরিমিত পরিমাণে নিয়মিত ফল ও শাকসবজি খেলে একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের যেমন বছরে সুস্থ দিনের সংখ্যা বেড়ে যায়, তেমনি বাড়ে বার্ষিক আয়।

বলা অত্যাবশ্যক যে, পটাশিয়াম মানবদেহের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে; আঁশ শরীরের কোলেস্টেরলসহ অন্যান্য দূষিত পদার্থ শরীর থেকে বের করে আনতে সহায়তা করে ও রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলেট শরীরের লোহিত রক্তকণিকা (হিমোগ্লোবিন) তৈরি করে এবং শিশুদের জন্মগত ত্রুটি রোধ করে। ভিটামিন চোখের জ্যোতি ও মসৃণ ত্বকের জন্য অতি প্রয়োজনীয় ও কার্যকর। ভিটামিন-ই বার্ধক্য রোধে, ভিটামিন সি শরীরের রক্তপাত রোধ, স্বাস্থ্যকর দাঁতের মাড়ি ও শরীরে অয়রন শোষণে ভূমিকা রাখে।

বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। পাশাপাশি দেশের সার্বিক পুষ্টি পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন ঘটলেও বিরাট জনগোষ্ঠী এখনো অপুষ্টির শিকার, যা করোনাপরবর্তী সময়ে আরও ব্যাপকতা লাভ করতে পারে। অপুষ্টিজনিত সমস্যার মধ্যে অন্যতম হলো রক্তস্বল্পতা, যা মূলত আয়রনজনিত ঘাটতিকেই বোঝায়। প্রয়োজনীয় ও পরিমাণমতো খাবার, বিশেষ করে আয়রনসমৃদ্ধ খাবার গ্রহণের স্বল্পতায় শিশু, কিশোর-কিশোরী, গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়েরা বেশি আক্রান্ত।

তাই কোভিড-পরবর্তী পুষ্টিনিরাপত্তার জন্য সুনির্দিষ্টভাবে কিছু পরিকল্পনার মাধ্যমে এগোতে হবে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন দেশের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে, অন্যান্য যত কারণই থাকুক না কেন? কোভিড প্রতিরোধে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যাদের বেশি তাদের ক্ষেত্রে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশ কম অথবা কেউ আক্রান্ত হলেও তা জটিল আকার ধারণ করেনি বা কওে না। বিগত দশকে মানুষের আর্থসামাজিক অবস্থার উন্নয়ন, ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি, সর্বোপরি পেশাগত কর্মব্যস্ততার ফলে মানুষের খাদ্যাভ্যাসের ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। অনেকেরই ধারণা, দামি খাবার ছাড়া পুষ্টি পাওয়া যায় না, যা সম্পূর্ণ ভুল। আমাদের দেশের কৃষি খুবই বৈচিত্র্যময়। প্রতিটি জাতের প্রচলিত-অপ্রচলিত ফল-সবজি কোনো না কোনো ধরনের পুষ্টির আধার। বিশ্বের প্রায় ৮০ শতাংশ খাবার এখন প্রক্রিয়াজাত, যা খুব একটা স্বাস্থ্যকর নয়। তবে এটা ঠিক, প্রক্রিয়াজাত খাবার স্বাভাবিক কারণেই পুরোপুরি বাদ দেওয়াও অসম্ভব। তবে পরিমিত খাওয়া যেতেই পারে। কিন্তু সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়টি হলো, বর্তমানে প্রায় ৮০-৯০ শতাংশ ছেলেমেয়ে ফল-সবজি খেতে চায় না বা খেতে অনীহা, এমনকি মাছও অনেকেরই অপছন্দ। সারাবিশ্বে ফাস্ট ফুড খাওয়ার ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া, স্থূলতা, ডায়াবেটিস, হার্ট অ্যাটাক, উচ্চরক্তচাপের মতো অসংক্রামক রোগগুলো হু হু করে বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। অন্যদিকে অধিকতর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার অভ্যাসের ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ছাড়াও অ্যালার্জির মতো অসুখে ভোগা মানুষের সংখ্যাও ক্রমবর্ধমান। সে জন্য সুষম ও পুষ্টিকর তথা বৈচিত্র্যময় খাবার খাওয়ার কোনো বিকল্প নেই।

সে জন্য পরিবার পর্যায়ে, স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, মাদ্রাসা, এতিমখানা, মসজিদ-মন্দিরে পুষ্টিকর খাবার বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানোর নিমিত্ত ব্যাপক কার্যকর কর্মসূচি বা উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। অন্যদিকে নি¤œ আয়ের ও কর্মহীন মানুষের কোভিড-১৯ পরবর্তী পুষ্টির বিষয়টি সরকার কর্তৃক বিশেষভাবে নজর দিতে হবে। নতুবা কর্মশক্তির ঘাটতি সৃষ্টি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে তাই বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য বিভিন্ন প্রকার খাবার তালিকা বা মেন্যু নির্ধারণ করে প্রচার-প্রচারণা চালানোসহ সচেতন করতে হবে। করোনাপরবর্তী নি¤œ আয়ের লোকদের আপৎকালীন বা একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত পুষ্টি সুরক্ষায় ও কর্মক্ষম রাখতে দামে সস্তা, সহজলভ্য অথচ পুষ্টিগুণে ভরপুর এ ধরনের খাবার আমলে বা নির্বাচনে পরামর্শ প্রদান করতে হবে, যা থেকে সর্বোচ্চ পুষ্টি উপাদান পাওয়া যাবে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশের রয়েছে দীর্ঘ অভিজ্ঞতা। অতীতে যেমন প্রতিটি দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সক্ষমতা দেখিয়েছে। তাই এবারও নিঃসন্দেহে বলা যায়, কৃষিপ্রিয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় ও সময়ের সাহসী যোদ্ধা সুযোগ্য কৃষিমন্ত্রীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে কৃষি আবার প্রাণ ফিরে পাবে। ইতোমধ্যে কৃষিমন্ত্রীর সার্বক্ষণিক তদারকি ও সময়মতো বিভিন্ন পদক্ষেপের ফলে হাওড়ের ধান কাটাসহ অন্য বিষয়গুলো দ্রুত সমাধান সম্ভব হয়েছে। আশা করা যায়, সময়মতো সার, বীজ ও প্রণোদনা যথাসময়ে যথাযথভাবে কৃষকের কাছে পৌঁছানো গেলে দেশের কৃষি ও কৃষক আবার ঘুরে দাঁড়াবে। দেশের অর্থনীতিসহ খাদ্য ও পুষ্টিনিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

ড. মো. মনিরুল ইসলাম : পরিচালক (পুষ্টি)

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল

advertisement