advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সহায়তা পাবেন আরও ৪ হাজার ক্রীড়াবিদ

ক্রীড়া ডেস্ক
৩০ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২৯ জুন ২০২০ ২২:২৫
advertisement

করোনা ভাইরাসের কারণে বিপর্যস্ত ক্রীড়াঙ্গন। এর মধ্যেই প্রায় ১০ হাজার ক্রীড়াবিদকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। আগামীতে আরও ক্রীড়াবিদকে সহায়তা করার আশ্বাস দিয়েছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় ‘করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের অনুদান’Ñ এই খাতে সরকার ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে। পূর্বের ১ কোটি টাকা এক হাজার ক্রীড়াবিদকে দেওয়া হয়েছিল ফেডারেশনগুলোর তৈরি করা তালিকার ভিত্তিতে। সক্রিয়তার ভিত্তিতে তখন ৩৪টি ফেডারেশন থেকে এক হাজার জন ক্রীড়াবিদের তালিকা এনেছিল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ।

এবারের বরাদ্দের পরিসরটা বড়। দেশের ৮ বিভাগ ও ৬৪ জেলা থেকেই করোনা ভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করে অর্থ প্রদান করা হবে। আর সেটা কীভাবে করা হবে সে জন্য যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (ক্রীড়া) আবদুল করিমকে আহ্বায়ক করে ‘আর্থিক অনুদান প্রদানসংক্রান্ত সুপারিশ প্রণয়ন কমিটি’ গঠন করেছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ।সাত সদস্যের কমিটির সদস্য সচিব জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পরিচালক (পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও ক্রীড়া) মো. শাহ আলম সরদার। সদস্য হিসেবে আছেনÑ এডিসি শিক্ষা উন্নয়ন (ঢাকা), ক্রীড়া পরিদপ্তরের প্রতিনিধি, বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) ফখরুদ্দিন হায়দার, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশিদ ও বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক।

‘আমরা কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছি। ২৩ জুন এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুরো দেশের প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক, প্রশিক্ষক এবং ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের বাছাই কীভাবে করা হবে সেটাই সুপারিশ করবে এই কমিটি। আমরা এখন কমিটির সুপারিশের অপেক্ষায় আছি। সুপারিশ পেলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে’Ñ বলেছেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব মো. মাসুদ করিম।

একটি বিষয়ের সিদ্ধান্ত অবশ্য হয়েই আছে। করোনা ভাইরাস মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্তদের ৭ হাজার টাকা করে প্রদান করা হবে। তাতে ৩ কোটি টাকা যতজনকে দেওয়া যায় ততজনকেই বাছাই করা হবে। সে হিসেবে ৪ হাজার ২৮৫ জনকে অর্থ সহায়তা দিতে পারবে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। আগে দিয়েছে ১ হাজার জনকে। দেশব্যাপী গ্রাম পর্যায় থেকে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের বাছাই করে ৪ হাজার ২৮৫ জনকে অর্থ সহায়তা দিলে মোট ৫ হাজার ২৮৫ জনকে সহায়তা দেওয়া হবে সরকারের পক্ষ থেকে। খেলাধুলা বন্ধ থাকায় ক্রীড়াঙ্গনের অনেকেই কর্মহীন হয়ে পড়েছে। খেলোয়াড়, সংগঠক, প্রশিক্ষক, রেফারি, আম্পায়ার, জাজসহ যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের জন্যই দুই দফায় ৪ কোটি টাকার ব্যবস্থা করেছেন দেশের খেলাধুলার অভিভাবক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। যিনি দেশে করোনা ভাইরাস মহামারী শুরুর পর থেকে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ইতোমধ্যে ‘করোনাযোদ্ধা’ হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও পেয়েছেন।

advertisement