advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কিছুটা ছাড় দিয়ে অর্থবিল পাস

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩০ জুন ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২৯ জুন ২০২০ ২২:৫২
advertisement

২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটকে জনবান্ধব ও ব্যবসাবান্ধব করতে কিছুটা ছাড় দিয়ে অর্থবিল ২০২০ সংসদে পাস হয়েছে। নিয়মিত ১০ শতাংশ হারে কর দিয়ে পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগ অর্থ তিন বছর রাখার প্রস্তাব কমিয়ে এক বছর করা হয়েছে। কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান আপিলে হেরে ট্রাইব্যুনালে গেলে কর দিতে হবে না। আগের মতোই ২০ শতাংশ কর অব্যাহত রাখা হয়েছে। সিএনজি রেজিস্ট্রেশনে সম্পূরক শুল্ক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। লোকাল অথরিটির উৎসে ভ্যাটের রিটার্ন বাধ্যতামূলক করাসহ কয়েকটি সংশোধনী এনে অর্থবিল ২০২০ জাতীয় সংসদে পাস করা হয়েছে। তবে এবারের বাজেটের সবচেয়ে আলোচিত ইস্যু মোবাইলে কথা বলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়নি। ছোটখাটো কিছু সংশোধনী আনা হলেও বড় ধরনের কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি।

গতকাল সোমবার জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে অর্থ বিল-২০২০ কণ্ঠভোটে পাস করা হয়। এ সময় সরকারি দলের সংসদ সদস্যরা টেবিল চাপড়ে অর্থমন্ত্রীকে অভিবাদন জানান। তবে করোনা সতর্কতার কারণে সংসদে উপস্থিতি ছিল সীমিত। আর আজ মঙ্গলবার ৩০ জুন সংসদে মূল বাজেট পাস হওয়ার কথা রয়েছে- যা আগামীকাল ১ জুলাই থেকে কার্যকর।

কয়েকজন সংসদ সদস্যের সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণের মধ্য দিয়ে সংসদে যে অর্থ বিল পাস হয়েছে, তাতে বড় ধরনের কোনো পরিবর্তনের প্রস্তাব ছিল না। মোবাইল সেবার ওপর সম্পূরক শুল্ক ১০

শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব প্রত্যাহারের যে দাবি ছিল, তাতে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। তবে অপ্রদর্শিত আয়ের টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে শর্ত কিছুটা শিথিল করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী তার প্রস্তাবিত বাজেটে পুঁজিবাজারে অর্থের প্রবাহ বাড়াতে ১০ শতাংশ কর দিয়ে ‘কালোটাকা সাদা’ করার সুযোগ দেওয়ার কথা বলেছিলেন। তবে শর্ত ছিল- সেই টাকা তিন বছরে পুঁজিবাজার থেকে বের করা যাবে না। সংশোধনে তিন বছরের জায়গায় ‘লক ইন’-এর নিয়ম এক বছর করা হয়েছে। এর আগের বিলের ওপর দেওয়া জনমত যাচাইয়ের প্রস্তাব এলে তা কণ্ঠভোটে নাকচ করা হয়। অর্থবিলে সরকারি, বিরোধী দল জাতীয় পার্টি এবং বিএনপির কয়েকজন সদস্য সংশোধনী প্রস্তাব আনেন। এসব প্রস্তাবের মধ্যে কিছু গ্রহণ করেন অর্থমন্ত্রী।

জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান, কাজী ফিরোজ রশীদ, মুজিবুল হক চুন্নু, আওয়ামী লীগের আবুল হাসান মাহমুদ আলী, আলী আশরাফ এবং বিরোধীদলীয় প্রধান হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গার কয়েকটি প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। পরে সেগুলো কণ্ঠভোটেও পাস হয়। অর্থবিল পাসের আগে বাজেটের ওপর নিজের সমাপনী বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তার আগে বাজেট আলোচনায় অংশ নেন সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রথা অনুযায়ী, অর্থবিলে কোনো পরিবর্তন আনতে হলে অর্থমন্ত্রীর সমাপনী বক্তব্য এবং অর্থবিল পাসের আগে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রীকে সে বিষয়ে অনুরোধ করেন। এর পর অর্থমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধ আমলে নিয়ে সেসব বিষয়ে পরিবর্তন এনে অর্থবিল পাসের প্রস্তাব করেন। কিন্তু এবার প্রধানমন্ত্রী কোনো পরিবর্তন আনতে অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ করেননি।

যেসব জায়গায় সংশোধনী আনা হয়- নন এসি রেস্টুরেন্ট ভ্যাট ৭ দশমিক ৫ শতাংশ বিলুপ্ত করা হয়েছে। জিরো কুপন বন্ডে কর আগের জায়গায় নেওয়া হয়েছে। ভ্যাটে উপকরণ কর রেয়াত আগের জায়গায় রাখা হয়েছে। আপিলে ২০ শতাংশ বহাল রাখা হয়েছে। লোকাল অথরিটির উৎসে ভ্যাটের রিটার্ন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে সব ধরনের করপোরেশন, সংস্থা, সিটি করপোরেশন, জেলা পরিষদ, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ, পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল, বিআরটিএ, বিআরটিসি, পোর্ট, বিপিসি ইত্যাদি এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টার।

তবে এবারের বাজেটের সবচেয়ে আলোচিত ইস্যু মোবাইলে কথা বলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়নি। বরং সে সম্পূরক শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাবই পাস করা হয়েছে।

পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল গত ১১ জুন ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব সংসদে উপস্থাপন করেন, যা দেশের মোট জিডিপির ১৭.৯ শতাংশের সমান। এর মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা, যা নিয়মানুযায়ী আগেই অনুমোদন করা হয়েছে।

এবার পরিচালন ব্যয় (ঋণ, অগ্রিম ও দেনা পরিশোধ, খাদ্য হিসাব ও কাঠামোগত সমন্বয় বাদে) ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৪৮ হাজার ১৮০ কোটি টাকা, যা বিদায়ী অর্থবছরের সংশোধিত অনুন্নয়ন বাজেটের চেয়ে প্রায় ১৮ শতাংশ বেশি।

advertisement