advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

৪৫ মিনিটে মিলবে করোনা পরীক্ষার ফল

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩০ জুন ২০২০ ১৫:২৫ | আপডেট: ৩০ জুন ২০২০ ১৭:৫৪
প্রতীকী ছবি
advertisement

দেহে করোনাভাইরাসের শনাক্তকরণের জন্য দেশে এতদিন আরটি-পিসিআর মেশিন ব্যবহার করা হতো। সীমিত সংখ্যক আরটি-পিসিআর মেশিনে চাপ সামলাতে না পেরে পরীক্ষা সুবিধা বাড়ানোর জন্য যক্ষ্মা নির্ণয়ের মেশিন ‘জিনএক্সপার্ট’ ব্যবহার শুরু করছে সরকার।

কর্মকর্তারা জানান, জিনএক্সপার্ট একটি পোর্টেবল মেশিন। এর মাধ্যমে পরীক্ষা সহজ এবং সময় লাগে কম। এই মেশিনের মাধ্যমে ফলাফল পেতে প্রায় ৪৫ মিনিট সময় প্রয়োজন হয়। নমুনা হিসেবে একজন ব্যক্তির লালা একটি কাঠির মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয় এবং কাঠিটি পরীক্ষার জন্য মেশিনের কার্তুজে রাখা হয়।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক সংস্থা গ্লোবাল ফান্ড ১০ হাজার কিট সরবরাহের পর রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) এবং জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে (এনআইডিসিএইচ) ২৪ জুন থেকে পরীক্ষা শুরু হয়।

কোভিড-১৯ পরীক্ষায় গোল্ড স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে বিবেচিত হয় আরটি-পিসিআর পরীক্ষা। এই পদ্ধতিতে পরীক্ষার ফলাফল পেতে প্রায় চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা সময় প্রয়োজন হয়। মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এরই মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত করতে জিনএক্সপার্ট পরীক্ষার অনুমোদন দিয়েছে। স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানান, বর্তমানে বাংলাদেশে ২৭০টি জিনএক্সপার্ট মেশিন রয়েছে।

বাংলাদেশে ৬৬টি ল্যাবে এখন দিনে গড়ে প্রায় ১৮ হাজার পরীক্ষা করা হচ্ছে। এত কম পরীক্ষা সক্ষমতার কারণে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এমন উদাহরণও রয়েছে যে, পরীক্ষার জন্য নমুনা দিতে সাত দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে।

জিনএক্সপার্ট সম্পর্কে বলতে গিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পোর্টেবল এই মেশিনগুলো দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করার পাশাপাশি সেখানকার জরুরি রোগীদের জন্য বেশ কার্যকর হতে পারে। তারা বলেছেন যে, জিনএক্সপার্ট পরীক্ষাও একটি রিয়েল টাইম পিসিআর পরীক্ষা। তবে এর জন্য রিএজেন্টের প্রয়োজন হয় না।

একটি জিনএক্সপার্ট কিটের দাম প্রায় ২৪ ডলার বা প্রায় দুই হাজার ৪৫ টাকা। যেখানে রিএজেন্ট ছাড়াই একটি পিসিআর টেস্ট কিটের দাম প্রায় ৩০ ডলার বা প্রায় দুই হাজার ৫৫০ টাকা।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এএসএম আলমগীর এই উদ্যোগের প্রশংসা করে জানান, এর মাধ্যমে আরও বেশি মানুষ পরীক্ষার আওতায় আসবে।

প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমেরিকা, ভারত এবং আরও কিছু দেশ ইতোমধ্যে পরীক্ষার জন্য মেশিনটি ব্যবহার করছে। ’

বিএসএমএমইউয়ের অভ্যন্তরীণ মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নাজমুল হাসান বলেন, ‘জিনএক্সপার্ট বহনযোগ্য হওয়ায় এটি সহজলভ্য। এটি যেসব প্রাথমিক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা সংগ্রহ কম এবং যে জায়গাগুলোতে অনেক বেশি পরীক্ষা করতে হচ্ছে সেখানে খুবই সহায়ক হবে।’

একটি জিনএক্সপার্ট মেশিন একবারে চার থেকে আটটি নমুনা পরীক্ষা করতে সক্ষম বলে তিনি যোগ করেন। শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজিস্ট এবং সহকারী অধ্যাপক জাহিদুর রহমান বলেন, ‘এটি একটি ভালো উদ্যোগ এবং উপজেলা পর্যায়ে এটি অনেক বেশি সহায়ক হবে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে মেশিনগুলো পরিচালনা করা এত সহজ যে এর জন্য কোনো অতিরিক্ত জনবলও প্রয়োজন হয় না।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমরা ছোট পরিসরে পরীক্ষা শুরু করেছি। কিট হাতে পেলে সারা দেশে এই পদ্ধতিতে পরীক্ষা বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে।’

advertisement