advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিবিএসের প্রতিবেদন
দেশে মানুষের গড় আয়ু ৭২.৬ বছর

নিজস্ব প্রতিবেদক
১ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩০ জুন ২০২০ ২৩:৫৩
advertisement

বাংলাদেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি গড় আয়ু বেড়েছে। বর্তমানে দেশে জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৬৫ লাখ। গড় আয়ু ৭২ দশমিক ৬ বছর। এ তথ্য উঠে এসেছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ‘রিপোর্ট অন বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিস্টিকস-২০১৯’ প্রতিবেদনে।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পরিসংখ্যান ভবন অডিটরিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব মোহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী। এ ছাড়া বক্তৃতা করেন বিবিএসের উপমহাপরিচালক ঘোষ সুব্রত। মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন প্রকল্প পরিচালক একেএম আশরাফুল হক।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৯ সালের হিসেবে প্রত্যাশিত আয়ুষ্কাল ৭২ দশমিক ৬ বছর, যা ২০১৮ সালে ছিল ৭২ দশমিক ৩ বছর। এ ছাড়া ২০১৭ সালে ৭২ বছর, ২০১৬ সালে ৭১ দশমিক ৬ বছর এবং ২০১৫ সালে ছিল ৭০ দশমিক ৯ বছর। প্রত্যাশিত গড় আয়ু পুরুষের চেয়ে নারীদের বেশি। ২০১৯ সালে পুরুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু হচ্ছে ৭১ দশমিক ১ বছর। ২০১৮ সালে ছিল ৭০ দশমিক ৮ বছর। ২০১৭ সালে ৭০ দশমিক ৬ বছর, ২০১৬ সালে ৭০ দশমিক ৩ বছর এবং ২০১৫ সালে ছিল ৬৯ দশমিক ৪ বছর। অন্যদিকে নারীদের ক্ষেত্রে দেখা যায়, ২০১৯ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত

পর্যায়ক্রমে প্রত্যাশিত গড় আয়ু হচ্ছে ৭৪ দশমিক ২ বছর, ৭৩ দশমিক ৮ বছর, ৭৩ দশমিক ৫ বছর, ৭২ দশমিক ৯ বছর ও ৭২ বছর।

প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের জন্য সঠিক অর্থ খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তথ্য সঠিকভাবে উপস্থাপন করা না গেলে অনেক সময় বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই সংশ্লিষ্টদের মাঠ থেকে বিশুদ্ধ তথ্য তুলে আনার আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব বলেন, দেশের উন্নতির যে কয়েকটি মূল সূচক প্রকাশ করা হয় তার প্রায় সব কটিই এই সার্ভে থেকেই পাওয়া যায়। এর মধ্য দিয়ে আমরা অন্য দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের আর্থ-সামজিক অবস্থার পরিমাপ করি। এবারের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, আর্থ-সামাজিক অনেক সূচকেই বাংলাদেশের চেয়ে শুধু শ্রীলংকাই কিছুটা এগিয়ে। ভারত, পাকিস্তান ও নেপালসহ অনেক দেশ আমাদের পেছনে রয়েছে।

মনিটরিং দ্য সিচুয়েশন অব ভাইটাল স্ট্যাটিস্টিক অব বাংলাদেশ (এমএসভিএসবি) তৃতীয় পর্যায় প্রকল্পের আওতায় সারাদেশের ২ হাজার ১২টি নমুনা এলাকা থেকে তথ্য সংগ্রহ করে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে।

প্রকল্প পরিচালক জানান, মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু বাড়ার কারণ হচ্ছেÑ এখন চিকিৎসাব্যবস্থা উন্নয়ন হয়েছে। মানুষ সহজেই চিকিৎসা নিতে পারছেন। তা ছাড়া খাদ্যগ্রহণ আগের চেয়ে বেড়েছে। পুষ্টি গ্রহণের ক্ষেত্রে তুলনামূলক অগ্রগতি হয়েছে। মানুষের সচেতনতা বেড়েছে। সব কিছু মিলিয়ে গড় আয়ু বেড়েছে। ১৯৮০ সাল থেকে নিয়মিতভাবে এসব তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বয়স্ক শিক্ষার হার (১৫ বছর বা তার বেশি) পল্লী এলাকার চেয়ে শহর এলাকায় প্রায় ২০ দশমিক ২ শতাংশ বেশি। সাত বছর বা তার বেশি বয়স্ক শিক্ষার ক্ষেত্রে এই হার প্রায় ১৭ দশমিক ২ শতাংশ। তবে ২০১৩ সাল থেকে শহর এলাকার তুলনায় পল্লী এলাকায় বয়স্ক শিক্ষার হার দ্রুত গতিতে বাড়ছে। মরণশীলতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উন্নতি হয়েছে। ২০১৯ সালের হিসাব অনুযায়ী, প্রতি হাজার মানুষের মধ্যে মরণশীলতা ছির ৪ দশমিক ৯ জন। ২০১৫ সালে এটি ছিল পাঁচ দশমিক একজন। এ ছাড়া প্রতি হাজার জীবিত জন্ম নেওয়া শিশুর ক্ষেত্রে মরণশীলতার হার দাঁড়িয়েছে ২১ জনে। যেটি ২০১৫ সালে ছিল হাজারে ২৯ জন। এ ছাড়া ২০১৯ সালে এক থেকে চার বছর বয়সী শিশু মৃত্যু কমে হয়েছে প্রতি হাজারে এক দশমিক সাতজন। যেটি ২০১৫ সালে ছিল দুজন। অন্যদিকে মাতৃমৃত্যুর হারও কমেছে। এটি গত পাঁচ বছরে সমহারে কমেছে। ২০১৫ সালে মাতৃ মৃত্যৃর অনুপাত ছিল এক দশমিক ৮১, যেটি ২০১৯ সালে কমে দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৬৫- তে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই সময়ে পুরুষদের প্রথম বিবাহের গড় বয়স কিছুটা কমেছে। তবে বেড়েছে নারীদের। পুরুষদের বিবাহের গড় বয়স ২০১৫ সালে ছিল ২৫ দশমিক ৩ বছর। সেটি কমে ২০১৯ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ২৪ দশমিক দুই বছরে। পক্ষান্তরে ২০১৫ সালে নারীদের বিবাহের বয়স ছিল ১৮ দশমিক চার বছর। সেটি কিছুটা বেড়ে ২০১৯ সালে দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক পাঁচ বছরে।

আগমন ও বহির্গমনের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ২০১৪ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে আগমন ও বহির্গমন উভয়ই এসভিআরএস নমুনা এলাকায় অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। ২০১৯ সালের প্রাপ্ত তথ্যের ফলে প্রতি হাজার জনসংখ্যার মধ্যে আগমন করে ৭২ দশমিক চারজন, ২০১৫ সালে এটি ছিল ৫৪ দশমিক দুজন। বহির্গমনের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, ২০১৯ সালে নমুনা এলাকার প্রতি হাজার জনসংখ্যার মধ্যে বর্হিগমন করে ৭২ দশমিক সাতজন। ২০১৫ সালে এটি ছিল ৫৪ দশমিক চারজন। এ ক্সেত্রে শহর এলাকায় আগমন ও বহির্গমন উভয়ই উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। শিক্ষার হারের ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, সাত থেকে তার বেশি জনসংখ্যার মধ্যে এখন শিক্ষার হার ৭৪ দশমিক চার শতাংশ। এছাড়া ১৫ বছর থেকে তার উপরের জনসংখ্যার মধ্যে শিক্ষার হার ৭৪ দশমিক সাত শতাংশ।

প্রতিবেদনে খানার (পরিবারের) বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালে পরিবারের আলোর উৎস হিসেবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছে ৯৩ দশমিক পাঁচ শতাংশ পরিবার, যেটি ২০১৫ সালে ছিল ৭৭ দশমিক নয় শতাংশ। স্যানিটারি পায়খানা ব্যবহার করে ৮১ দশমিক ৫ শতাংশ পরিবার, যেটি ২০১৫ সালে ছিল ৭৩ দশমিক পাঁচ শতাংশ। খানা প্রধানের ক্ষেত্রে পুরুষ ৮৫ দশমিক চার শতাংশ এবং নারী ১৪ দশমিক ছয় শতাংশ। যেটি ২০১৫ সালের তুলনায় নারীর ক্ষেত্রে বেড়েছে। কিন্তু পুরুষদের ক্ষেত্রে কমেছে। ট্যাপ বা নলকূপের পানি ব্যবহার করছে ৯৮ দশমিক এক শতাংশ পরিবার, যেটি ২০১৫ সালে ছিল ৯৭ দশমিক নয় শতাংশ। বর্তমানে দেশে মোট জনসংখ্যার মধ্যে মুসলিম হচ্ছে ৮৮ দশমিক চার শতাংশ, যেটি ২০১৫ সালে ছিল ৮৮ দশমিক দুই শতাংশ। হিন্দুসহ অন্যান্য ধর্মের জনসংখ্যা ১১ দশমিক ছয় শতাংশ, যা ২০১৫ সালে ছিল ১১ দশমিক ৮ শতাংশ।

জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত পাঁচবছরে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহারের হার বাড়েনি। প্রায় একই রকম রয়েছে। নমুনা এলাকায় এই হার ৬৩ দশমিক চার শতাংশ। শহর এলাকায় নারীরা ৬৪ দশমিক চার শতাংশ জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির ব্যবহার করে। অন্যদিকে গ্রামে ৬২ দশমিক সাত শতাংশ নারী এই পদ্ধতি ব্যবহার করে। তবে জন্মনিয়ন্ত্রণের আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহারের হার বেড়েছে।

advertisement