advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শিশুকে সময় দিন

মায়িদা করিম
১ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১ জুলাই ২০২০ ০১:৩২
advertisement

করোনার এই দীর্ঘ সময় হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে শিশুদের বাড়িতে থেকে একঘেয়ে লাগতে পারে। তাই তাদের মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে নিতে হবে বাড়তি যতœ। এ সময় শিশুর শারীরিক ও মানসিক যতœ কীভাবে নেবেন, এ ব্যাপারে লিখেছেন মায়িদা করিম

বিনোদন দিন বাড়িতেই : শিশুর একঘেয়েমি দূর করতে বাড়িতে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের মাধ্যমে বিনোদন দেওয়ার চেষ্টা করুন। যেটিই করবেন, তা যেন অবশ্যই বাড়ির মধ্যেই হয়। সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবারের সদস্যদের মধ্যেই যেন তারা আনন্দে থাকে, সেটি খেয়াল রাখতে হবে। জেদকে প্রশ্রয় না দিয়ে কৌশলে তাদের সামলাতে হবে। এ সময় শিশুদের ইতিবাচক ইচ্ছার গুরুত্ব আরও বেশি দিতে হবে।

বুঝিয়ে শেখান : যে কোনো রোগ সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা পেতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা জরুরি। এ সময় শিশুকে রোগ সংক্রমণের কারণ ও প্রতিরোধের উপায়গুলো শেখান। সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে হাত ধোয়ার নিয়ম শিখিয়ে দিন। বুঝতে না চাইলে শাসন না করে আদর দিয়ে, ভালো উদাহরণ দিয়ে শিখিয়ে দিন।

আতঙ্ক থেকে দূরে : এ সময় যেহেতু তারা ঘরে থাকছে, সেহেতু টিভি বা যে কোনো মিডিয়ার সঙ্গে সময় বেশি কাটাচ্ছে। এগুলোয় প্রচারিত নানা রকম খবর বা গুজবে শিশুরা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে উঠতে পারে। তাই সঠিক নিয়ম মেনে চললে সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা পাওয়া সম্ভবÑ এ বিষয়ে আশ্বস্ত করুন।

সতর্কতা রাখুন : ছোট থেকেই শিশুকে পারিবারিক ও সামাজিক অনেক বিষয়ে শিক্ষা দিতে হয়। এখন মা-বাবা যথেষ্ট সময় পাচ্ছেন শিশুর জন্য। তাই যে কোনো বিষয়ে হাতে-কলমে শিক্ষা দিন ও সচেতন করে তুলুন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কীভাবে সবার সঙ্গে সম্প্রীতি রক্ষা করা যায়, এ বিষয়ে শেখান। শিক্ষামূলক বই পড়তে দিন। টিভি বা কার্টুন দেখার চেয়ে সৃজনশীল কাজ করতে আগ্রহী করে তুলুন।

শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশÑ দুটিই একটি অন্যটির সঙ্গে সম্পৃক্ত। তাই এগুলো সুরক্ষায় পরিবারের ভূমিকাই মুখ্য।

advertisement