advertisement
advertisement

সিটিস্ক্যান শেষে ঢামেকে বন্ধুকে দেখতে গেলেন ডা. জাফরুল্লাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২ জুলাই ২০২০ ২২:৫৯
advertisement

করোনামুক্ত হলেও এখনো সুস্থ নন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। গতকাল সকাল ১০টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) মাথা ও বুকের সিটিস্ক্যান করিয়েছেন তিনি। এর পর সেখান থেকে তার বন্ধু সিপিবির সভাপতিম-লীর সদস্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হায়দার আকবর খান রনোকে দেখতে যান মুক্তিযুদ্ধের এই সংগঠক। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ফরহাদ আমাদের সময়কে এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দপ্তরপ্রধান জাহাঙ্গীর

আলম মিন্টু জানান, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন বর্ষীয়ান বাম নেতা হায়দার আকবর খান রনোকে দেখতে সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যান ডা. জাফরুল্লাহ। এ সময় আধাঘণ্টা রনোর শয্যাপাশে দাঁড়িয়ে তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। রনো গত ২৮ জুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে পরদিন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মিন্টু জানান, ডা. চৌধুরী তার বন্ধু রনোর হাত ধরে নীরবে বাকরুদ্ধ অবস্থায় দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকেন। এক পর্যায়ে চৌধুরী বলেন, রনোর উন্নত চিকিৎসার জন্য আমি যে কোনো আর্থিক সহযোগিতা করতে প্রস্তুত। সুস্থতা কামনা করে রনোকে বলেনÑ ‘তুমি বাংলাদেশের জীবিত শেষ বিপ্লবী মার্কসবাদী নেতা। দেশের ক্রান্তিকালে আমাদের জনগণের মুক্তির আন্দোলনে তোমাকে বেঁচে থাকতে হবে। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন গণস্বাস্থ্য হাসপাতালের আইসিইউপ্রধান অধ্যাপক ডা. নজীব মোহাম্মদ, রেডিওলজিপ্রধান অধ্যাপক ডা. মতিন খান, অধ্যাপক ডা. শওকত আরমান এবং ডিএমসির নতুন বিল্ডিং তৃতীয় তলার আইসিও কার্ডিওলজি বিভাগের চিকিৎসকরা।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা জানান, ডা. জাফরুল্লাহ করোনামুক্ত হলেও শারীরিকভাবে বেশ দুর্বল। অন্যের সহায়তা নিয়ে তাকে হাঁটতে হয়। গলার ইনফেকশনের কারণে কথা বলতে বেশ কষ্ট হয়। ধীরে ধীরে তার উন্নতি হচ্ছে। সকাল ১০টার দিকে বিএসএমএমইউতে মাথা ও বুকের সিটিস্ক্যান করানো হয়েছে। পরে ঢামেকে চিকিৎসাধীন বন্ধুকে দেখে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে ফিরে এসেছেন।

গত ২৫ মে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। গত ১২ জুন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত অ্যান্টিজেন কিট দিয়ে পরীক্ষায় তার শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। পরে আরটিপিসিআর পরীক্ষার ফলেও তার কোভিড-১৯ নেগেটিভ এসেছে। তবে ফুসফুসের সংক্রমণ, গলার ইনফেকশনসহ আরও কিছু শারীরিক জটিলতার কারণে তিনি এখনো গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

advertisement
Evaly
advertisement