advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তিতাস গ্যাসে বাড়ছে করোনা আতঙ্ক

এক জিএমের মৃত্যু আক্রান্ত ২২

লুৎফর রহমান কাকন
৩ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২ জুলাই ২০২০ ২৩:৫১
advertisement

জাতীয় জরুরি সেবাগুলোর মধ্যে অন্যতম গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলোর কার্যক্রম। তাই চলমান মহামারীর মধ্যে ঝুঁকি সত্ত্বেও এই সেবা অব্যাহত রেখেছে দেশের সবচেয়ে বড় গ্যাস বিতরণ কোম্পানি তিতাস গ্যাস ট্রান্স মিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি। তবে প্রতিষ্ঠানটির অনেক কর্মী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সম্প্রতি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মোমেনুল ইসলাম খান নামে তিতাসের প্রধান শাখার জেনারেল সার্ভিসের একজন মহাব্যবস্থাপক কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মারা যাওয়ায় কর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক আরও বেড়েছে।

তিতাস সূত্রে জানা যায়, এ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির ২২ কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যাদের অধিকাংশই প্রধান কার্যালয়ের। তাদের মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ছাড়াও নিরাপত্তা প্রহরী ও গাড়িচালকও রয়েছেন। ফলে তিতাসের প্রধান কার্যালয়ে সবার মধ্যে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ ছাড়া গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জসহ প্রতিষ্ঠানটির কয়েকটি জোনাল অফিসেও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আক্রান্ত হওয়ার খবর এসেছে। প্রধান কার্যালয়ের একাধিক বিভাগের প্রকৌশলী ও সাধারণ কর্মকর্তা-কর্মচারী জানান, তারা নিয়মিত অফিস করতে ভয় পাচ্ছেন। পাইপলাইন শাখার এক প্রকৌশলী আমাদের সময়কে বলেন, তিতাস শুরু থেকে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সেবাপ্রার্থী বা দর্শনার্থী সীমিত করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। কিন্তু প্রকৃত অর্থে তাদের আটকে রাখা যাচ্ছে না। এর মধ্যেই প্রতিষ্ঠানে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। অনেকেই নানা উপসর্গ নিয়ে অফিস করছেন। ফলে সবার মধ্যে আতঙ্ক বাড়ছে। কারণ দিনশেষে আমরা যখন বাসায় যাই, তখন পরিবারের অন্যরাও ঝুঁকির মধ্যে থাকে।

বিষয়টি নিয়ে তিতাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী মো. আল-মামুন বলেন, ‘তিতাসের বিভিন্ন শাখায় বেশ কয়েকজন আক্রান্ত আছেন। এ ছাড়া প্রতিদিন দর্শনার্থী বা সেবাপ্রত্যাশীদের চাপ রয়েছে। তবে আমরা চেষ্টা করছি কর্মীদের সুরক্ষিত রেখে কীভাবে কাজ চালিয়ে নেওয়া যায়।’

advertisement