advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ঝালকাঠিতে ৫ সংগঠনের নামে আবেদন একজনের

ঝালকাঠি প্রতিনিধি
৩ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩ জুলাই ২০২০ ০০:০২
advertisement

ঝালকাঠি জেলার সাংস্কৃতিক কর্মকা-কে বেগবান করতে এবং সুস্থ ধারার সংস্কৃতিচর্চায় ৩০টি সংগঠনে অনুদানের জন্য ৬ লাখ ৩৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়। এ অনুদান নিয়েও চলছে ‘নয়ছয়’ কারবার। সরকারি টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করছে নামসর্বস্ব কতিপয় সংগঠন। অভিযোগে জানা যায়, দুলাল দাস নামের এক ব্যক্তিই পাঁচটি সংগঠনের নামে প্রায় ১ লাখ ১০ হাজার টাকার জন্য আবেদন করেন। তার নামে ওই পরিমাণ টাকার চেকও ইস্যু হয়ে যায়। বিষয়টি জানাজানি হলে জেলার প্রকৃত সংস্কৃতিকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা অভিযোগ দেন জেলা প্রশাসক বরাবরে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ওই সরকারি অনুদানের চেক বিতরণ স্থগিত করেছেন জেলা প্রশাসক। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় জেলার ৩০টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের জন্য ৬ লাখ ৩৫ হাজার টাকা অনুদান বরাদ্দ করে। কিন্তু সারা বছর সংস্কৃতিচর্চা বা কার্যক্রমে কোনো ভূমিকা না থাকলেও কতিপয় প্যাড ও সাইনবোর্ডসর্বস্ব সংগঠনের নাম অনুদান পাওয়ার তালিকায় দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সংস্কৃতিকর্মীরা। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যাচাই না করে শুধু আবেদনের মাধ্যমে ‘স্থানীয় সুযোগ সন্ধানী কতিপয় ব্যক্তি’ বরাদ্দের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হন বলে অভিযোগ ওঠে। এর মধ্যে দুলাল দাস নামের এক সংগঠক একাই ৫টি সংগঠনের নামে আবেদন করেন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তার নামে প্রায় ১ লাখ ১০ হাজার টাকার চেক ইস্যু করা হয়। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে ধানসিঁড়ি অপেরা পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি স্বপন কুমার দাস ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ কয়েকটি সংগঠন লিখিত অভিযোগ করেছে। তারা দুলাল দাসের কাছ থেকে ওই অর্থ উদ্ধার ও জালজালিয়াতির মাধ্যমে সরকারি অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার জন্য ফৌজদারি আইনে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত দুলাল দাস বলেন, আমার প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণœ করার জন্য কতিপয় লোক মিথ্যাচার করছে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী জানিয়েছেন, ৫টি সংগঠনের নামে একজন অনুদানের আবেদন করার বিষয়ে একটি অভিযোগ আমি পেয়েছি। এর পরিপ্রেক্ষিতে সেই সংগঠনগুলোর বরাদ্দকৃত অনুদান স্থগিত রাখা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

advertisement
Evaly
advertisement