advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিপাকে পড়েছেন নুসরাত-মিমি

বিনোদন সময় ডেস্ক
৩ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩ জুলাই ২০২০ ০০:১২
advertisement

টিকটক অ্যাপে বিশেষভাবে সক্রিয় ছিলেন কলকাতার জনপ্রিয় দুই অভিনেত্রী নুসরাত জাহান ও মিমি চক্রবর্তী। কিন্তু গত ২৯ জুন থেকে ভারত সরকার টিকটকসহ ৫৯টি চাইনিজ অ্যাপ বন্ধ করায় বিপাকে পড়েছেন তারা। কারণ এ মাধ্যমটিতে তাদের ভক্ত-অনুরাগীদের সংখ্যা ছিল নজর কাড়ার মতো। তাই টিকটক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নুসরাত-মিমির অনুসারীদেরও যে মন খারাপ হয়েছে, সেটি বলাই বাহুল্য।

তবে দেশের স্বার্থের কাছে এ অ্যাপ গুরুত্বহীন বলে জানান নুসরাত জাহান। বললেন, ‘ভক্তদের সঙ্গে যুক্ত থাকার একটা মাধ্যম মাত্র টিকটক। কিন্তু দেশের স্বার্থে যেহেতু এ অ্যাপ বন্ধ করা হয়েছে, তাতে খুব বেশি একটা খারাপ লাগছে না।’ ২০১৮ সালে টিকটক অ্যাপে যুক্ত হন নুসরাত। এ অ্যাপ বন্ধ হলেও ফলোয়ারদের সঙ্গে তার দূরত্ব বাড়বে না বলে জানান তিনি। টিকটক অ্যাপের বদলে ইন্সটাগ্রামের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখবেন এ অভিনেত্রী।

মিমি চক্রবর্তী যদিও টিকটকের থেকে নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে বেশি সক্রিয়। টিকটক বন্ধ হওয়ার বিষয়ে তিনি জানান, তিনি একজন পারফর্মার। তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। তাই প্রত্যেকটি প্লাটফর্মে তার কাছে সমান। আগামীতে আরও কিছু অ্যাপ যদি বন্ধ হয়ে যায়, তাতেও কোনো অসুবিধা হবে না। তবে কয়েকটি প্রশ্ন তুলেছেন মিমি। ভারতে চীনা দ্রব্যের ব্যবসার সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন, তারা কি কাজ হারাবেন? ভারতে কি বিকল্প বড় কারখানা তৈরি করা হবে?

advertisement
Evaly
advertisement