advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

গ্রেপ্তার বাড়ির কেয়ারটেকার পালিয়ে বেড়াচ্ছেন মালিক

ভাড়া না পেয়ে মালামাল ডাস্টবিনে

নিজস্ব প্রতিবেদক
৪ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ জুলাই ২০২০ ০৯:৪০
advertisement

রাজধানীর কলাবাগানে বাড়ি (রুবি ভবন) এবং পূর্ব রাজাবাজারে হোস্টেল থেকে শিক্ষার্থীদের ল্যাপটপ, সার্টিফিকেট, ট্রাঙ্ক ও অন্যান্য জিনিসপত্র ফেলে দেওয়ার ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার খোরশেদ আলম আলিফ হোস্টেলের কেয়ারটেকার। এ ঘটনায় চার এইচএসসি পরীক্ষার্থী তাদের পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ড খুঁজে না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। উভয় ঘটনায় থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। রুবি ভবনের মালিক মুজিবুল হক কাঞ্চন ও আলিফ হোস্টেলের মালিক সৈকতকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার গভীর রাতে কলাবাগানের সেন্ট্রাল রোডের ওয়েস্ট অ্যান্ড স্ট্রিটের ৪/এ নম্বর বাড়ির (রুবি ভবন-কামরুন নাহার) নিচতলার ফ্ল্যাট থেকে আট শিক্ষার্থীর সব জিনিসপত্র গ্রিন রোডে সিটি করপোরেশনের ডাস্টবিনে ফেলে দেন বাড়ির মালিক মুজিবুল হক কাঞ্চন। শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা তিন মাস ধরে ভাড়া দিচ্ছে না। একই দিন রাতে পূর্বরাজাবাজারের আলিফ হোস্টেলের ৪০-৪৫ শিক্ষার্থীর জিনিসপত্র বের করে হোস্টেল ভবনের গ্যারেজে রেখে দেওয়া হয়। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীদের পোশাক, ফাইলপত্র, বই, ছোট ব্যাগ একটি পিকআপ ভ্যানে তুলে পান্থপথে সিটি করপোরেশনের ডাস্টবিনে ফেলে দেওয়া হয়। খবর পেয়ে পরদিন সকালে শিক্ষার্থীরা ডাস্টবিন থেকে তাদের কিছু জিনিসপত্র উদ্ধার করে। রুবি ভবনের ঘটনায় শিক্ষার্থী সজীব ও আলিফ হোস্টেলের সোহান পৃথকভাবে বাদী হয়ে কলাবাগান থানায় দুটি মামলা করেছেন।

গতকাল ওয়েস্ট অ্যান্ড স্ট্রিটের রুবি ভবনের কেয়ারটেকার মোসলেম উদ্দিন জানান, সাত তলা বাড়ির নিচতলার ফ্ল্যাটে ওই শিক্ষার্থীরা দুই বছর ধরে ভাড়া থাকেন। করোনায় লকডাউনের সময় তারা বাসায় তালা দিয়ে চলে যায়। এতে এপ্রিল, মে ও জুন মাসের ভাড়া বকেয়া পড়ে। এ অবস্থায় বাড়ির মালিক জুন মাসে টু-লেট টানিয়ে দেন। জুলাই মাস থেকে নতুন ভাড়া হয়ে যায়। ৩০ জুনের আগ পর্যন্ত বাড়ির মালিক ফোন করে তাদের জিনিসপত্র নিয়ে যেতে বলেন। জুন মাস শেষ হওয়ার পর ১ জুলাই নতুন ভাড়াটিয়া আসে। পরে বাড়ির মালিক বাধ্য হয়ে ১ জুলাই রাতে ফ্ল্যাটের সব জিনিসপত্র ফেলে দিয়ে নতুন ভাড়াটিয়া তোলেন।

পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ওই শিক্ষার্থীরা গ্যাস-বিদ্যুৎ ও পানির বিল বাবদ ১৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেছে। এর পরও বাড়ির মালিক তাদের ভাড়া পরিশোধ না করার অজুহাতে জিনিসপত্র ফেলে দেয়। শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৪ জন ঢাকা কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী। ফেলে দেওয়া জিনিসপত্রের মধ্যে তাদের রেজিস্ট্রেশন কার্ডও ছিল। সেটি তারা খুঁজে পাচ্ছে না। এ ব্যাপারে পুলিশের পক্ষ থেকে ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে যেন রেজিস্ট্রেশন কার্ড ছাড়াই তারা পরীক্ষায় অংশ নিতে পারে সে ব্যবস্থা করার জন্য। এ ছাড়া অনেক শিক্ষার্থী তাদের এসএসসি, এইচএসসি ও অন্যান্য পরীক্ষার সনদপত্র এবং মার্কশিট খুঁজে পাচ্ছেন না। তাদের সমস্যাও সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ চন্দ্র বলেন, দুই ঘটনায় বাড়ির মালিককে এখনো খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। গ্রেপ্তারকৃত খোরশেদ আলমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

 

advertisement
Evaly
advertisement