advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

অক্সফোর্ডের বাঙালি গবেষক সুনেত্রা গুপ্তের দাবি
সবার করোনা টিকা না-ও লাগতে পারে

আমাদের সময় ডেস্ক
৪ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ জুলাই ২০২০ ০৯:০৮
advertisement

নভেল করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে টিকা বা প্রতিষেধক তৈরি নিয়ে নিবিড় গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন দেশের বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। এসব টিকার বেশিরভাগই এখনো হিউম্যান ট্রায়াল বা মানবদেহে পরীক্ষার পর্যায়ে আছে। এই টিকার কতগুলো চূড়ান্ত পরীক্ষায় যত দ্রুত পাস হয়, এখন সেদিকেই তাকিয়ে আছে বিশ^। তবে গবেষণা পর্যায়ে থাকা করোনার সবচেয়ে সম্ভাবনাময় ভ্যাকসিনটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ^বিদ্যালয়ের গবেষক মহামারী বিশেষজ্ঞ সুনেত্রা গুপ্ত বলছেন ভিন্ন কথা। তার মতে, করোনার টিকা বের হলেও বেশিরভাগ মানুষেরই এটি গ্রহণের প্রয়োজন হবে না। গত বৃহস্পতিবার হিন্দস্তান টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘অধিকাংশ মানুষের জন্য এই ভাইরাস দুশ্চিন্তার কারণ নয়। সাধারণ ফ্লু বা জ্বরের ক্ষেত্রে যতটা ঝুঁঁকি থাকে, করোনার ক্ষেত্রে একজন সম্পূর্ণ সুস্থ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষেরও ঠিক ততটাই ঝুঁকি রয়েছে। যারা বয়স্ক বা যাদের আগে থেকেই কোনো বড় রকমের স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে, কেবল তাদের ক্ষেত্রেই করোনায় বিশেষ ঝুঁঁকি রয়েছে। যাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল, কেবল তাদের ক্ষেত্রেই টিকা করোনার ঝুঁকি কমানোর পক্ষে সহায়ক হতে পারে।’
অন্যদিকে, ইন্ডিয়া টুডেকে
দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বিশেষ দূত ড. ডেভিড নাবারো বলেন, করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর টিকা পেতে আরও অন্তত আড়াই বছর অপেক্ষা করা লাগবে। পরিপূর্ণভাবে করোনা থেকে বের হয়ে আসার কোনো উপায় আপাতত নেই জানিয়ে ড. নাবারো বলেন, ‘এমনকি যখন একটা ভ্যাকসিন আসবে, তার পরও আমাদের অনেক সময় লাগবে জানতে যে গ্রহণকারীদের শরীরে এটি ঠিকঠাক কাজ করছে কিনা। টিকা মানবদেহে সত্যিই কার্যকর কিনা তা জানতে আমাদের আরও অনেক তথ্য-প্রমাণ দরকার। দ্বিতীয় প্রশ্নটি হবে, এসব টিকা মানুষের শরীরে প্রয়োগে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় কিনা।’ টিকা বের হলেও এটি গ্রহণের সময় এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
কয়েকটি ভ্যাকসিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পার করেছে বলে আগাম অনুমাননির্ভর যে পরিস্থিতির কথা বলা হচ্ছে, সে সম্পর্কে ড. নাবারো বলেন, ‘২০২১ সালের শুরুতে যদি এগুলো ঘটেও, তা হলেও তা খুব বেশি উপকারে আসবে না। কারণ দুনিয়ার সবার টিকা পেতে হলে আমাদের সত্যিকার
অর্থে অনেক বেশি টিকার দরকার পড়বে। এটা করতে হলে যারা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছে তাদেরকেই অগ্রাধিকার দিতে হবে। ধনী এবং গরিব সব দেশের সবার জন্যই দিতে হবে এটা পাওয়ার নিশ্চয়তা।’
পৃথিবীর সব মানুষের জন্য এক ডোজ টিকা নিশ্চিত করতে কত দিন সময় লাগতে পারেÑ এমন প্রশ্নে ডব্লিউএইচওর বিশেষ দূত বলেন, ‘আমার মতে এ জন্য অন্তত আড়াই বছর সময় লাগবে। সেই কারণে আমি সবাইকে অন্তত আড়াই বছরের জন্য জীবনযাপনের পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনতে বলছি। তবে এর চেয়ে যদি আগে হয়, তা হলে সবচেয়ে আনন্দিত ব্যক্তিটি আমিই হব।’

advertisement
Evaly
advertisement