advertisement
advertisement

গোল্ডেন হ্যান্ডশেক প্রসঙ্গে পাটমন্ত্রী
তিন দিনে জানা যাবে কে কত পাবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
৪ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৩ জুলাই ২০২০ ২৩:২৪
advertisement

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকরা গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের আওতায় কে কত টাকা পাবেন তা আগামী তিন দিনের মধ্যে জানতে পারবেন। পাটকল শ্রমিকদের প্রত্যেককে তাদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধ করা হবে। এক বছর আগে (রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের বিষয়টি) ঠিক হয়েছে। আমরা যেহেতু লসের ভার বইতে পারছিলাম না, দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে হবে, তাই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ হয়েছিল এগুলোকে (সরকারি পাটকল) কীভাবে আরও উন্নত করা যায় (সে বিষয়ে)। প্রধানমন্ত্রী নিজেই শ্রমিকদের দায়িত্ব নিয়েছেন বলে এ নিয়ে আর ভাবনার কিছু নেই। গতকাল শুক্রবার এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক এ কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে শ্রম ও

কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান সুফিয়ান, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল কালাম ও বিভিন্ন শ্রমিক নেতাসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পাটমন্ত্রী আরও বলেন, এটা সরকারি টাকা। মাঝখানে কেউ নেই। এখানে কোনো দালাল নেই। টাকা শ্রমিকদের অ্যাকাউন্টে সরাসরি চলে যাবে। শ্রমিকরা কী পাচ্ছে আর পাচ্ছে না, সেটা আপনারা নিজেরাই জানতে পারবেন। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে ফোন করে বললেন, শ্রমিকরা তো আমাদেরই লোক, এদের ঠকানো যাবে না। প্রধানমন্ত্রী পাটকে ভালোবাসেন। এ পাট আবার এগিয়ে যাবে। তাই এই শ্রমিক ভাইদের আমরা কোনোভাবেই ঠকাব না। তাদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধ করা হবে।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী আরও বলেন, পুরনো টেকনোলজি দিয়ে মাসের পর মাস আমাদের কারখানা টিকতে পারবে না। গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যখন কথা হলো, তখন তিনি বললেন, এই শ্রমিক ভাইয়েরা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আন্দোলন করেছে। ১ লাখ শ্রমিক যুদ্ধ করে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছে। শ্রমিকদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর মায়া আছে। শ্রমিক ভাইয়েরা সবসময় আমাদের সঙ্গে ছিলেন। তাদের আত্মত্যাগের কথা আমরা ভুলিনি।

শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে দেওয়া প্রসঙ্গে গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, শ্রমিকদের যা পাওনা রয়েছে, আমরা সেটা অর্ধেক নগদ টাকা ও অর্ধেক সঞ্চয়পত্র আকারে পরিশোধ করব। এতে করে তাদের সঞ্চয়ও হবে। সঞ্চয়পত্র থেকে তিন মাস পর পর মুনাফা পাবেন তারা।

পাটমন্ত্রী আরও জানান, মজুরি কমিশন-২০১৫ অনুযায়ী পাটকল শ্রমিকদের এ বছরের জুন মাসের মজুরি আগামী সপ্তাহে তাদের ব্যাংক হিসাবে পরিশোধ করা হবে। নোটিশ মেয়াদ, অর্থাৎ জুলাই-আগস্টের ৬০ দিনের মজুরিও দুই মাসে যথারীতি পরিশোধ করা হবে। পিএফ, গ্র্যাচুইটি ও গোল্ডেন হ্যান্ডশেক সুবিধাসহ অবশিষ্ট সব পাওনার ৫০ শতাংশ শ্রমিকদের নিজ নিজ ব্যাংক অ্যাকাউন্টে এবং বাকি ৫০ শতাংশ নিজ নিজ নামে সঞ্চয়পত্র আকারে সেপ্টেম্বরের মধ্যে পরিশোধ করা হবে। সব ক্ষেত্রেই মজুরি কমিশন-২০১৫-এর ভিত্তিতেই পাওনা হিসাব করা হবে।

পাটমন্ত্রী আরও জানান, পিপিপির আওতায় পাটকলগুলো আবার চালু হলে সেখানে পুরনো শ্রমিকদেরই অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের জন্য ব্যাংক হিসাব নম্বর অবিলম্বে বিজেএমসিকে জানাতেও অনুরোধ জানান তিনি।

advertisement
Evaly
advertisement