advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

লিভারপুলের জালে সিটির গোল উৎসব

ক্রীড়া ডেস্ক
৪ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ জুলাই ২০২০ ০০:০৭
advertisement

ম্যানচেস্টার সিটি ম্যাচ শুরুর করেছিল ইংল্যান্ডের নতুন চ্যাম্পিয়নদের গার্ড অব অনার জানিয়ে। লিভারপুলকে শুভেচ্ছা জানানোর লাইনে ছিলেন পেপ গার্দিওলাও। আগেরবারের চ্যাম্পিয়নদের অধিকার ছেড়ে দিয়ে নতুন চ্যাম্পিয়নদের অধিকার বুঝিয়ে দেওয়ার বিড়ম্বনার আনুষ্ঠানিকতা। ম্যান সিটির অস্বস্তি অবশ্য এর পর কেটে গেছে লিভারপুলকে নাস্তানাবুদ করতে পেরে। ৩০ বছরের অপেক্ষা কাটিয়ে ইংল্যান্ডের লিগ জয়ের পর প্রথমবার মাঠে ফিরে লিভারপুলের খেলোয়াড়দের পেতে হয়েছে হারের তিক্ত স্বাদ। তাতে অবশ্য কিছুই বদলাচ্ছে না, তবে ম্যান সিটির একটা মানসিক শান্তি পাওয়ার কথা। চ্যাম্পিয়নদের গার্ড অব অনার দিয়ে তাদের জালে এক হালি গোল পুরতে পারা তো খানিকটা হলেও প্রশান্তির!

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে শুরুতেই জমে যায় ম্যাচ। নিজেদের ঘরের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ৪-০ গোলের এ জয়ের মাধ্যমে ১৯৩৭ সালের পর এবারই প্রথম লিভারপুলের বিপক্ষে টানা তিনটি হোম ম্যাচ জিতল ম্যান সিটি। ম্যাচের প্রথমার্ধেই তিন গোল করে সিটিজেনরা, দ্বিতীয়ার্ধে অন্য গোলটি আসে লিভারপুলের আত্মঘাতী উপহার হিসেবে। পুরো ম্যাচে একচ্ছত্র আধিপত্য বলতে যা বোঝায় ঠিক তেমনটা করতে পারেনি ম্যান সিটি। প্রায় সমানে সমান লড়েছে লিভারপুলও। বিশেষ করে ম্যাচের প্রথম ২০ মিনিটেই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে উঠেছিল ম্যাচ। তবে কাজের কাজ গোলটি করতে পারেনি অলরেডরা।

শেষ গোলের মতো প্রথম গোলটিও এক অর্থে উপহারই পেয়েছে ম্যান সিটি। ২৫ মিনিটের সময় ডি-বক্সের ভেতরে রহিম স্টার্লিংকে ফাউল করেন জোসেফ গোমেজ, পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পটকিক থেকে দলের প্রথম গোলটি করেন সিটির বেলজিয়ান মিডফিল্ডার কেভিন ডি ব্রুইন। মিনিট দশেক পর ব্যবধান বাড়ান স্টার্লিং। বলের নিয়ন্ত্রণ ঠিকভাবে নিতে না পারলেও জালের ঠিকানা খুঁজে নিতে ভুল করেননি এ ইংলিশ ফরোয়ার্ড। ম্যাচের বিরতিতে যাওয়ার আগে লিভারপুলকে ০-৩ গোলে পিছিয়ে দেন ফিল ফোডেন। বড় ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় স্বাগতিক দলটি।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরেও গোলের নেশা থামেনি তাদের। আক্রমণ চলতে থাকে শুরুর মতোই। কিন্তু জালের ঠিকানা পাওয়া যায়নি। ম্যাচের ৬৬ মিনিটে নিজেদের জালেই গোল করেন লিভারপুলের অ্যালেক্স অক্সলেড চ্যাম্বারলিন, পূরণ হয় হালি। পরে ৮২ মিনিটে রিয়াদ মাহরেজ ব্যবধান ৫-০ করেছিলেন বটে, তবে ভিএআরে বাতিল হয়ে যায় সেটি।

এ ম্যাচের পর ৩২ ম্যাচ শেষে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানেই রয়েছে ম্যান সিটি। সমান ম্যাচে ৮৬ পয়েন্ট আগেই লিগ শিরোপা নিশ্চিত করা লিভারপুলের। লিগের বাকি আর মাত্র ৬টি ম্যাচ। ম্যাচ শেষে গার্দিওলার মুখে চ্যাম্পিয়নদের হারানোর উচ্ছ্বাস, ‘কী আর বলব? আমরা চ্যাম্পিয়নদের হারিয়েছি, অসাধারণ একটি দলকে হারিয়েছি। তারা শুরুর দিকে সালেহর মাধ্যমে ভালো সুযোগ পেয়েছিল, তবে এর পর আমরা দারুণ পারফরম করেছি। আরও গোল করতে পারতাম আমরা।’ আর ক্লপ তো ম্যাচের পর স্কাই স্পোর্টস সাংবাদিকের প্রশ্ন শুনে একরকম ক্ষেপেই গেলেন। মূলত দলের মনোভাব নিয়ে প্রশ্ন করাতেই ক্লপ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন, ‘আপনি যদি দল ম্যাচ নিয়ে ফোকাসড ছিল না বলে নিউজ করতে চান, তা হলে করুন।’

ক্লপের দলের এখন আর কিছুই যায় আসে না বটে। তবে চ্যাম্পিয়ন হয়ে মাঠে ফিরে এমন হার তো অস্বস্তিরই!

advertisement