advertisement
advertisement

পরিবারসহ সাংবাদিককে কোপানোয় ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার

মো. হাবিবুর রহমান,মুরাদনগর
৪ জুলাই ২০২০ ২৩:৪৯ | আপডেট: ৫ জুলাই ২০২০ ০০:৫৭
সাংবাদিক শরীফ (বাঁয়ে) এবং ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া
advertisement

দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির সংবাদ প্রকাশের জেরে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক সমকাল পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি শরিফুল আলম চৌধুরীকে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। তার বাড়িতে ঢুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে, হাতুড়ি ও লোহার পাইপ দিয়ে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দিয়েছে উপজেলার দারোরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের লোকজন। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

কোপানো ও মারধরের এ ঘটনায় আহত হয়েছেন সাংবাদিক শরীফের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন চৌধুরী ও তার স্ত্রী। আজ শনিবার দুপুরে মুরাদনগর উপজেলার দারোরা ইউনিয়নের কাজিয়াতল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে আহত অবস্থায় স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সাংবাদিক শরীফের বাবা আব্দুল মতিন। তিনি জানান, দারোরা ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহানের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির সংবাদ প্রকাশ করেন তার ছেলে। এ ঘটনায় শরীফকে প্রাণে শেষ করে দেওয়ার হুমকি দেন চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া। সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে এ নিয়ে বিভিন্ন সময় কথাবার্তা বলেন শরীফ। নিজেকে অনিরাপদ ভেবে একমাস বাড়ির বাইরে ছিলেন তিনি। গত সপ্তাহে বাড়ি আসেন।

আব্দুল মতিন বলেন, ‘শরীফ বাড়িতে এসেছে জানার পর আজ দুপুরে চেয়ারম্যান শাহজাহানের লোকজন বাড়িতে ঢুকে কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাকে টেনে হিছড়ে বাড়ির উঠানে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে দা দিয়ে কুপিয়ে, হাতুড়ি ও লোহার পাইপ দিয়ে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে ফেলে। তার মাথায় দা কুপিয়ে দিয়ে মারাত্মক আহত করে।’

সাংবাদিক শরীফের বাবা আরও বলেন, ‘ছেলেকে বাঁচাতে গেলে তারা রামদা দিয়ে আমার ডান হাতে কোপ দেয়, রড দিয়ে পেটায়। শরীফের মায়ের বা হাত ভেঙে দেয়। আমরা চিৎকার করলেও চেয়ারম্যানের লোকজনের ভয়ে কেউ এগিয়ে আসতে পারেনি। সন্ত্রাসীরা চলে যাওয়ার পর শরীফকে নিয়ে প্রথমে আমরা মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাই। তবে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।’

আহত  মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন চৌধুরী ও তার স্ত্রী মুরাদনগর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ.কে.এম মনজুর আলম এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, শরিফুল আলম চৌধুরীর বাবা এ ঘটনায় মামলা দায়ের করেছেন। চেয়ারম্যান শাহাজাহনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

advertisement