advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

স্পন্সর সংকটে পাকিস্তান

ক্রীড়া ডেস্ক
৭ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৬ জুলাই ২০২০ ২৩:০৪
advertisement

চার মাস পর অনুশীলনে নেমেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। ইংল্যান্ড সফর সামনে রেখে প্রস্তুতি শুরু করেছে তারা। তবে শুরু হয়েছে নতুন জটিলতা। সিরিজের স্পন্সর পাচ্ছে না পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।

দল যখন অনুশীলন নিয়ে ব্যস্ত, পিসিবি কর্তারা ব্যস্ত স্পন্সর ঠিক করতে। এখনো যে পাওয়া যায়নি পৃষ্ঠপোষক! একটা প্রতিষ্ঠান আগ্রহ দেখালেও আগের চুক্তির মাত্র ৩০ শতাংশ দিতে রাজি হয়েছে। কোভিড নাইনটিনের ধাক্কা সামাল দেওয়া যে কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তার পরও আশাবাদী হয়ে দল নেমে পড়েছে অনুশীলনে।

পাকিস্তান জাতীয় দলের জার্সির সর্বশেষ স্পন্সর ছিল পেপসি। তাদের সঙ্গে চুক্তি শেষ হয়েছে কিছুদিন হলো। এর পর আর কোনো স্পন্সর খুঁজে পাচ্ছে না পিসিবি। তাই লোগোহীন জার্সিতেই অনুশীলন করতে দেখা গেছে খেলোয়াড়দের। নতুন স্পন্সর না পেলে লোগোবিহীন জার্সি নিয়েই খেলতে হবে পাকিস্তানকে।

পিসিবির মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট থেকে এমন স্পন্সর না পাওয়ার কারণ হিসেবে করোনা ভাইরাস মহামারীর কথাই উল্লেখ করা হয়েছে। অবশ্য এটিকে ¯্রফে এক অজুহাত বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা। কেননা করোনা ভাইরাস আসার অনেক আগে থেকেই পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে নেই কোনো স্পন্সর। সব খরচ করে সরাসরি পিসিবিই। এবার জাতীয় দলের ক্ষেত্রেও এমনটা হবে কিনা তা সময়ই বলে দেবে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর সম্ভাব্য তারিখ আগামী ৫ আগস্ট। অর্থাৎ এখনো প্রায় এক মাস সময় রয়েছে পিসিবির হাতে। এ সময়ের মধ্যে স্পন্সর খুঁজে না পেলে করোনা লকডাউন-পরবর্তী প্রথম সিরিজটি লোগোবিহীন জার্সিতে খেলতে হবে বাবর আজম, আজহার আলীদের।

কয়েক মাস ঘরবন্দি থাকার পর মাঠে নামলে কী হতে পারে সেটা ক্রিকেটাররা ভালো করেই জানেন। ফিটনেস, মানিয়ে নেওয়া, মানসিক শক্তি ধরে রাখাÑ এমন বহু চ্যালেঞ্জ। পাকিস্তান অনুশীলন শুরু করেছে। ব্যাটিং-বোলিংয়ে শুধু ঝালিয়ে নেওয়া নয়, নতুন করে শুরু করতে হচ্ছে। তবে কোচ মিসবাহ উল বলছেন, তিনি যেমনটা ধারণা করেছিলেন, তার চেয়ে বেশি ফিট ক্রিকেটাররা।

মিসবাহ বলেন, অনেক দিন পর সবাই অনুশীলন শুরু করেছে। আমি কিছুটা ভয়ে ছিলাম; কিন্তু সত্যি বলতে, সবাইকে দেখে মনে হচ্ছে প্রত্যাশার চেয়ে ভালো করছে। প্রস্তুতি শেষ হলে তারা একদম ফিট হয়ে উঠবেন।

advertisement