advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যশোরে পুলিশি নির্যাতনে কলেজছাত্রের কিডনি নষ্ট

বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
৭ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৬ জুলাই ২০২০ ২৩:১৭
advertisement

পুলিশি নির্যাতনে দুটি কিডনি নষ্ট হওয়া কলেজছাত্র ইমরান হোসেনের ব্যাপারে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। রিটকারী পক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল বিচারপতি জেবিএম হাসানের ভার্চুয়াল বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন। যশোরের জেলা ও দায়রা জজকে তার অধীন্যস্ত যুগ্ম জেলা জজের নিচে নয়Ñ এমন একজন বিচারককে দিয়ে এ নির্যাতনের ঘটনার তদন্ত করে ৬০ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হুমায়ূন কবির পল্লব ও রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সমরেন্দ্র নাথ বিশ্বাস। পরে হুমায়ূন কবির পল্লব জানান, এর আগে পুলিশের পক্ষ থেকে দাখিল করা তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছেÑ ইমরান হোসেন মাদকাসক্ত। এ অবস্থায় গত ২৮ জুন হাইকোর্ট ইমরানের ডোপ টেস্ট করে রিপোর্ট দাখিল করতে যশোরের সিভিল সার্জনকে নির্দেশ দেন। সিভিল সার্জনের দাখিল করা প্রতিবেদনে বলা হয়েছেÑ ইমরান মাদকাসক্ত নয়। এ অবস্থায় দুটি রিপোর্ট সাংঘর্ষিক হয়ে যাওয়ায় আমাদের আবেদনে আদালত বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

ইমরানের কিডনি নষ্ট হওয়ার উপক্রমের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত, ইমরানের জন্য ক্ষতিপূরণ এবং তার চিকিৎসা যাবতীয় ব্যয় বিবাদীদের বহন করার নির্দেশনা চেয়ে গত ১৮ জুন রিট আবেদন করেন সুপ্রিমকোর্টের দুই আইনজীবী মো. হুমায়ূন কবির পল্লব ও মোহাম্মদ কাউসার।

রিট আবেদনে বলা হয়, গত ৩ জুন যশোর জেলার সদর উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামের নেছার আলীর ছেলে ইমরান হোসেন সাজিয়ালী পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ অফিসার কর্তৃক নির্মম প্রহারের শিকার হন। এ ঘটনায় ৯ জুন ‘যশোরে পুলিশি নির্যাতনে কলেজছাত্রের কিডনি নষ্ট’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ইমরানকে

আটককারী তিন পুলিশের বিরুদ্ধে প্রতিবেদনে বলা হয়েছেÑ ইমরানের কাছ থেকে অনৈতিকভাবে অর্থ নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এসব প্রতিবেদন দেখে আদালত ইমরানের ডোপ টেস্ট রিপোর্ট দাখিল করার নির্দেশ দেন। সে অনুযায়ী ডোপ টেস্টের প্রতিবেদন দাখিল হলে সোমবার বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন।

advertisement
Evaly
advertisement